সরকারি উদ্যোগে চালু হলো পশুর ডিজিটাল হাট
০৭জুলাই,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: এবার সরকারের উদ্যোগে কোরবানির পশু ক্রয়-বিক্রয়ের জন্য চালু হলো ডিজিটাল হাট। এ ডিজিটাল হাটে বিনামূল্যে নিবন্ধন করে পশু বিক্রি করতে পারবেন ব্যবসায়ীরা। মঙ্গলবার (৭ জুলাই) তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগের জনসংযোগ শাখা থেকে জারি করা প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। এতে বলা হয়, সব খামারি ও ক্রেতাদের স্বাস্থ্য নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ কোরবানির পশু ক্রয়-বিক্রয়ের জন্য ডিজিটাল হাটের ব্যবস্থা করেছে। এটিই হবে সরকারি উদ্যোগে দেশের সবচেয়ে বড় ডিজিটাল পশু কোরবানির হাট। এ হাটে ক্রেতারা ঘরে বসেই গরুর ছবি ও ভিডিও দেখা ও লাইভ ওজন জানার সুযোগ পাবেন। একই সঙ্গে তিনি গরু মালিক, খামারি বা ব্যাপারীদের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ করার সুযোগ পাবেন। এরপর নির্দিষ্ট স্থান থেকে অথবা হোম ডেলিভারির ভিত্তিতে টাকার বিনিময়ে গরু সংগ্রহ করতে পারবেন। এতে আরও বলা হয়, দেশের সর্ববৃহৎ এ ডিজিটাল হাটের জন্য সারা দেশ থেকে গরু- ছাগলের মালিক, খামারের মালিক ও সাধারণ পশু ব্যবসায়ীদের নিবন্ধন কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এ পেশার সব মানুষ https://foodfornation.gov.bd/qurbani2020/ ওয়েব সাইটে প্রবেশ করে বিনামূল্যে নিবন্ধন করার সুযোগ পাবেন। নিবন্ধনের পর নিজস্ব প্যানেল থেকে পশুর ছবি, ভিডিও ও অন্যান্য তথ্য আপলোড করতে হবে। এসব ছবি ও তথ্য ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সরকার তার নিজ খরচে প্রচার করবে। ফলে ক্রেতারা সহজেই তাদের কোরবানির জন্য প্রয়োজনীয় পশু পছন্দের সুযোগ পাবেন এবং বিক্রেতার সঙ্গে যোগাযোগ করে ডেলিভারি নিতে পারবেন। এ বিষয়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ফুড ফর নেশন প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে এটি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। প্ল্যাটফর্মটি কোরবানির পশুর জন্য দেশের সবচেয়ে বড় ম্যাচ মেকিং ডিজিটাল হাট হতে যাচ্ছে। খামারি ও মালিকদের অর্থনৈতিক ক্ষতি ও তাদেরসহ ক্রেতাদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য আমরা এ উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। আমি সারা দেশের খামারি ও মালিকদের অনুরোধ জানাচ্ছি, আপনারা আপনাদের পশুর তথ্য নিয়ে এ প্ল্যাটফর্মে আসুন। আমরা দেশের সবার স্বাস্থ্য সুরক্ষা অটুট রেখেই আমাদের অর্থনৈতিক ও ধর্মীয় কর্মকাণ্ডগুলো চালু রাখতে চাই।
মুজিববর্ষ উপলক্ষে বিজিবির বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি শুরু
০৭জুলাই,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী মুজিববর্ষ উপলক্ষে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি-২০২০ শুরু করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। মঙ্গলবার (৭ জুলাই) সকালে বিজিবির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. সাফিনুল ইসলাম বিজিবি সদর দপ্তর, পিলখানার অভ্যন্তরে বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের মাঠে একটি বট গাছের চারা রোপণ করে ওই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। মো. সাফিনুল ইসলাম বলেন, প্রাকৃতিক সৌন্দর্য বর্ধন, পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা, সুস্থ জীবনযাপন ও কর্মপরিবেশ নিশ্চিত, জীবনযাত্রার মানোন্নয়ন এবং বায়ু ও অন্যান্য পরিবেশ দূষণরোধ, জলবায়ুর বিরূপ প্রভাবজনিত প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলাসহ জীববৈচিত্রের অস্তিত্ব রক্ষার্থে আমাদের অধিক পরিমাণে বৃক্ষরোপণ করা প্রয়োজন। তিনি এই বাহিনীর সদর দপ্তরসহ, সব রিজিয়ন, প্রতিষ্ঠান, সেক্টর, ব্যাটালিয়ন ও বিওপির প্রতিটি খালি জায়গায় বিভিন্ন জাতের বৃক্ষরোপণ এবং পার্বত্য এলাকার ইউনিট/বিওপি/ক্যাম্পসমূহে ফলজ বৃক্ষের চারা রোপণ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করে এ কর্মসূচি সফল করার জন্য বিজিবির সব সদস্যকে আহ্বান জানান। এছাড়া মহাপরিচালক অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে অভিমত ব্যক্ত করেন যে, নব সৃজিত ইউনিটসমূহের বৃক্ষরোপণ পরিকল্পনা এমনভাবে করতে হবে যাতে ইউনিটের ভবিষ্যৎ উন্নয়ন পরিকল্পনা বাধাগ্রস্ত না হয়।
করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৫৫ মৃত্যু, শনাক্ত ৩০২৭
০৭জুলাই,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ৫৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে দুই হাজার ১৫১ জনের। নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ৩ হাজার ২৭ জন। সব মিলিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে এক লাখ ৬৮ হাজার ৬৪৫ জনে। মঙ্গলবার (৭ জুলাই) দুপুর আড়াইটায় করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত নিয়মিত অনলাইন স্বাস্থ্য বুলেটিনে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা এ তথ্য জানান। তিনি জানান, ঢাকা সিটিসহ দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ও বাড়িতে উপসর্গ বিহীন রোগীসহ গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন এক হাজার ৯৫৩ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ৭৮ হাজার ১০২ জন। তিনি আরো জানান, সারাদেশে ৭৪টি ল্যাব আছে। গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ১৩ হাজার ৪৯১টি। মোট নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ১৩ হাজার ১৭৩টি। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা হয়েছে আট লাখ ৭৩ হাজার ৪৮০টি। নাসিমা সুলতানা জানান, ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৫৫ জনের মধ্যে ৪৬ জন পুরুষ ও নারী নয় জন। এদের মধ্যে রয়েছেন ঢাকা বিভাগে ২৭ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ১২ জন, রাজশাহী, বরিশাল সিলেট ও রংপুর বিভাগে দুই জন করে আট জন, খুলনা বিভাগে সাত জন, ময়মনসিংহ বিভাগে এক জন। এদের মধ্যে হাসপাতালে মারা গেছেন ৩৯ জন, বাসায় মারা গেছেন ১৫ জন। মৃত অবস্থায় হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে এক জনকে। মৃত্যুদের বয়স বিশ্লেষণে দেখা যায়, ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে এক জন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে ছয় জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ২১ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ১৮ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ছয় জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে দুই জন ও ১১ থেকে থেকে ২০ বছরের মধ্যে এক জন। তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে এসেছেন ৮০২ জন ও আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন ৭২৩ জন। এ পর্যন্ত আইসোলেশনে এসেছেন ৩২ হাজার ৩৫১ জন। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন ১৬ হাজার ৮৭৩ জন।
কামরাঙ্গীরচরে বাড়ির ছাদে গাঁজা চাষ!
০৭জুলাই,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরে বাড়ির ছাদে গাঁজার চাষ করার অভিযোগে রিপন নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সোমবার কামরাঙ্গীরচর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ মোস্তফা আনোয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, রবিবার রাতে কামরাঙ্গীরচরের পূর্ব রসুলপুর ৬ নম্বর গলির সামনে দুই দফা অভিযান চালানো হয়। এরপর রাতে আক্কাস মিয়ার ৫ তলা বাড়ির ছাদে তল্লাশি চালিয়ে গাঁজার গাছ পাওয়া যায়। পরে গাঁজার গাছ জব্দ ও রিপনকে গ্রেপ্তার করা হয়। রিপন পেশাদার মাদক কারবারি। এ ঘটনায় কামরাঙ্গীরচর থানায় মামলা হয়েছে। ওই মামলায় সোমবার রিপনকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। রিপন এর আগেও ইয়াবা, ফেন্সিডিল ও গাঁজাসহ বিভিন্ন মাদকদ্রব্য নিয়ে গ্রেপ্তার হয়েছিল। তার বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে। স্থানীয়রা বলছে, কামরাঙ্গীরচরের পূর্ব রসুলপুর ১, ২, ৩, ৪, ৫, ৬, ৮ ও ৯ নম্বর গলি রিপনের মাদকের আখড়া হিসেবে পরিচিত। সূত্র : দেশ রূপান্তর
যেসব এলাকায় গ্যাস থাকবে না আজ
০৭জুলাই,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: রাজধানীর বনানী, মহাখালী ডিওএইচএস ও এর আশপাশের এলাকায় মঙ্গলবার (৭ জুলাই) দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে। সোমবার (৬ জুলাই) এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কম্পানি লিমিটেড। এতে বলা হয়, ২৪ ইঞ্জিনিয়ার কনস্ট্রাকশন ব্রিগেডের অধীন ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে রুট এলাইনমেন্টের মধ্যে বিদ্যমান ইউটিলিটি প্রতিস্থাপন-অপসারণ প্রকল্পের দ্বিতীয় ট্রাঞ্চের প্রথম পর্যায়ে বনানী রেল স্টেশন থেকে মহাখালী বাস টারমিনাল পর্যন্ত পাস পাইপলাইন স্থানান্তর ও গ্রাহক সংযোগ প্রতিস্থাপন করা হবে। তাই পাস পাইপলাইন স্থানান্তর ও গ্রাহক সংযোগ প্রতিস্থাপন কাজের জন্য ৭ জুলাই দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত বেশকিছু এলাকায় গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে। এতে আরও বলা হয়, শহীদ উদ্দিন অ্যাভিনিউয়ের উভয় পাশের এলাকা, মহাখালী ডিওএইচএস, পূর্ব-নাখালপাড়া, ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট আবাসিক এলাকা, বনানী সমগ্র এলাকা ও তৎসংলগ্ন এলাকায় শিল্প, বাণিজ্যিক, সিএনজি ও আবাসিক শ্রেণির গ্রাহকদের গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে। গ্রাহকদের সাময়িক অসুবিধার জন্য তিতাস কর্তৃপক্ষ আন্তরিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করেছে।
মাশরাফির স্ত্রী সুমিও করোনায় আক্রান্ত
০৭জুলাই,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনায় জীবন যখন বিপর্যস্ত তখন নড়াইলের মানুষের পাশে নিঃস্বার্থভাবে দাঁড়িয়েছেন জাতীয় ক্রিকেট দলের সফল অধিনায়ক নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য নড়াইল এক্সপ্রেস খ্যাত মাশরাফি বিন মর্তুজা। নড়াইলের মানুষকে করোনা থেকে রক্ষার চ্যালেঞ্জ নেওয়া ম্যাশ নিজেই নিজেকে রক্ষা করতে পারেননি এই ভাইরাস থেকে। গত ২০ জুন চিকিৎসকেরা জানায় করোনা ভাইরাস বাসা বেঁধেছে তার শরীরে। ঘরে বসে করোনা ভাইরাস থেকে মুক্ত হওয়ার জন্য ঢাকার নিজ বাসায় চিকিৎসা নিচ্ছেন সবার প্রিয় ম্যাশ। এরই মধ্যে মাশরাফির স্ত্রী সুমনা হক সুমিও করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। সোমবার (৬ জুলাই) রাতে মাশরাফির পারিবারিক সূত্র জানায়, বর্তমানে ঢাকার বাসায় থেকে মাশরাফির স্ত্রী সুমনা হক সুমি চিকিৎসা নিচ্ছেন। সুমির শারীরিক অবস্থা ভাল। মাশরাফি করোনা আক্রান্ত হওয়ার দুই দিনপর তার একমাত্র ছোট ভাই মুরসালিন বিন মর্তুজা (সিজার) করোনা আক্রান্ত হন। চিকিৎসকের পরামর্শে ঢাকার বাসায় আইসোলেশনে রয়েছেন মাশরাফি, মাশরাফির ছোট ভাই সিজার এবং স্ত্রী সুমনা হক সুমি।
আয়মান সাদিককে হত্যার হুমকি, তদন্তে পুলিশ
০৭ জুলাই,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: টেন মিনিটস স্কুলের সাবেক এক কর্মীর সমকামিতার সমর্থনে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেওয়া স্ট্যাটাসের জেরে প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা আয়মান সাদিককে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে। রোববার (৫ জুলাই) নিজের ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে প্রকাশিত একটি ভিডিওতে এ বিষয়ে তিনি ও তার পরিবারের আতঙ্কের বিষয়টি তুলে ধরেন। সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ্যে আয়মান সাদিককে মুরতাদ আখ্যা দিয়ে হত্যার হুমকি দিয়ে বেশ কয়েকটি ভিডিও প্রকাশ করা হয়েছে। বিষয়টি ইতোমধ্যে আমলে নিয়ে ইতোমধ্যে নজরদারির কথা জানিয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিট। ভিডিওতে আয়মান সাদিক উল্লেখ করেন, আমি কখনো চিন্তা করিনি আমাকে এ ভিডিও তৈরি করতে হবে এবং আমার ধর্মের হিসেব দিতে হবে। কিন্তু আমার মা যখন ইউটিউবে, ফেসবুকে দেখছে তার ছেলেকে হত্যার কথা বলছে তখন আপনার কেমন লাগবে জানি না। তবে আমার বাসার পরিস্থিতি হচ্ছে কিছুক্ষণ পরপর আমি বাবা-মাকে দেখে আসছি তারা কি দেখছে। তারাও বারবার দেখছে আমি আদৌ ঠিক আছি কি-না। কারণ ফেসবুক ইউটিউব-সব জায়গায় আমাকে মেরে ফেলার জন্য বলা হচ্ছে। এমনকি শতশত না হাজার হাজার মানুষ এটি শেয়ার করছে। তিনি বলেন, এটা করা হচ্ছে কারণ আমি আমার ধর্মের হিসেব দেইনি। যে ধর্মের হিসেব আল্লাহর কাছে দেওয়ার কথা সেটি পাবলিকলি সবার কাছে দিতে হবে? তার কারণ হলো টেন মিনিট স্কুলের ভিন দেশে থাকা ভিন বিশ্বাসী এক সাবেক কর্মী সমকামিতা নিয়ে একটি পোস্ট দিয়েছেন। এটার জন্য আমাকে মেরে ফেলতে হবে? ভিন দেশে থাকা, ভিন বিশ্বাসী একজনের স্ট্যাটাসের কারণে যদি আমাকে মেরে ফেলতে হয়, টেন মিনিট স্কুলকে বয়কট করতে হয় তাহলে ভিন দেশে থাকা ভিন বিশ্বাসী ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা যখন সমকামিতাতে সাপোর্ট করে তখন তো আমাদের ফেসবুককে বয়কট করা উচিত। এ বিষয়ে সিটিটিসির এক উপ-কমিশনার (ডিসি) পদমর্যাদার এক কর্মকর্তা জানান, আয়মান সাদিক ও টেন মিনিট স্কুলকে হুমকি দিয়ে তৈরি করা ভিডিওগুলো দেখে আয়মান সাদিকের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। এই ভিডিওগুলো কারা তৈরি করছে এবং কারা ছড়াচ্ছে তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। সম্প্রতি বিদেশে অবস্থান করা টেন মিনিটস স্কুলের সাবেক এক কর্মী সমকামিতা সমর্থন করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেন। এছাড়া টেন মিনিট স্কুল থেকে একটি ভিডিও প্রকাশ করা হয় যেখানে মেয়েদের স্বাস্থ্য শিক্ষার বিষয়ে সচেতন করা হয়। কিন্তু প্রবল আপত্তির মুখে টেন মিনিট স্কুল অনলাইন প্লাটফর্ম থেকে তাদের এ ভিডিওটি সরিয়ে নেয়। পরে আয়মান সাদিক টেন মিনিটস স্কুলের ফেসবুক পেজে স্ট্যাটাস দিয়ে ক্ষমা প্রার্থনা করেন।
ঘোড়াশাল রি-পাওয়ারিং (১ম সংশোধিত) প্রকল্পের অনুমোদন
০৬জুলাই,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ঘোড়াশাল ৩য় ইউনিট রি-পাওয়ারিং (১ম সংশোধিত) প্রকল্পের অনুমোদেন দেওয়া হয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায়। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে বিদ্যমান বিদ্যুৎ কেন্দ্রটির উৎপাদন ক্ষমতা আরো ২৬০ মেগাওয়াট বৃদ্ধি পাবে। এ জন্য প্রকল্পটিতে মোট ২ হাজার ৯৫৬ কোটি ৬১ লাখ টাকা ব্যয়ের অনুমোদন দেওয়া হয়। জানুয়ারি ২০১৫ থেকে চলমান প্রকল্পটি ডিসেম্বর ২০২০ পর্যন্ত মেয়াদ বৃদ্ধি করা হয়েছে। সোমবার (০৬ জুলাই) শেরে বাংলা নগরস্থ এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত একনেক সভায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যুক্ত হন একনেক চেয়ারপারসন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গণভবনে প্রধানমন্ত্রী ছাড়াও পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান উপস্থিত ছিলেন। পরে একনেক সভা শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে অংশ নিয়ে একনেক সভার বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন পরিকল্পনামন্ত্রী। বিদ্যুতের ক্রমবর্ধমান চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে ঘোড়াশাল ৩য় বিদ্যুৎ ইউনিটকে রি-পাওয়ারিং করে এর বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা ২১০ মেগাওয়াট থেকে ৪১৬ মেগাওয়াটে উন্নীত করা হবে। গ্যাসের দক্ষ ব্যবহারের মাধ্যামে ইউনিট প্রতি বিদ্যুৎ উৎপাদন ব্যয় হ্রাস করা ছাড়াও বিদ্যুৎ প্ল্যান্টের দক্ষতা ৩৪ শতাংশ থেকে ৫৪ শতাংশ বৃদ্ধি করা হবে। গ্যাস টারবাইনের নির্গত গ্যাস পুনর্ব্যবহার করে বায়ু দূষণ হ্রাস করাসহ পুরাতন বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কার্যকাল (লাইফ টাইম) বৃদ্ধি করা হবে। ফলে দেশে লোড শেডিং কমবে। ২৬০ মেগাওয়াট গ্যাস টারবাইন জেনারেটিং ইউনিট, গ্যাস বুস্টার কমপ্রেসার এবং অক্সিলারিজসহ ডিজেল জেনারেটর সেট স্থাপন করা হবে। বর্তমানে ঘোড়াশালে ২১০ মেগাওয়াট স্টিম টারবাইন জেনারেটিং ইউনিটের ব্যবস্থা রয়েছে। একনেক সভায় ইনস্টলেশন অব সিঙ্গেল পয়েন্ট মুরিং (এসপিএম) উইথ ডাবল পাইপলাইন (২য় সংশোধিত) প্রকল্পেরও অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। আমদানিকৃত ক্রুড অয়েল ও ফিনিসড প্রোডাক্টস সহজে খালাস নিশ্চিত করাসহ ক্রুড অয়েল ও এইচএসডি (হাই স্পিড ডিজেল) খালাসকরণের সময় কমানো হবে। ১ লাখ ২০ হাজার ডিডব্লিউটি (ডেড ওয়েট টনেজ) ক্রুড অয়েল ট্যাংকার খালাসকরণের ব্যাপ্তি হবে ৪৮ ঘণ্টা এবং ৭০ হাজার ডিডব্লিউটি এইচএসডি ট্যাংকার খালাসকরণের ব্যাপ্তি হবে ২৮ ঘণ্টা। দেশের জ্বালানি চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে ক্রুড অয়েল প্রক্রিয়াকরণ ক্ষমতা বৃদ্ধি করা; এটি ইআরএলর বাৎসরিক প্রক্রিয়াকরণ ক্ষমতা ১ দশমিক ৫ মিলিয়ন মেট্রিক টন থেকে ৪ দশমিক ৫ মিলিয়ন মেট্রিক টনে বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে। নভেম্বর ২০১৫ থেকে শুরু হওয়া প্রকল্পের মেয়াদ জুন ২০২২ পর্যন্ত বৃদ্ধি হয়েছে। এ প্রকল্পের মোট ব্যয় হয়েছে ৬ হাজার ৫৬৮ কোটি টাকা। সোমবার বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের এ দুই প্রকল্পসহ মোট ৯ প্রকল্পের চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)।
চলে গেলেন বরেণ্য সংগীতশিল্পী এন্ড্রু কিশোর
০৬জুলাই,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বাংলাদেশের কিংবদন্তি সংগীতশিল্পী এন্ড্রু কিশোর মারা গেছেন। ৬টা ৫৫ মিনিটে তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। সোমবার (০৬ জুলাই) এন্ড্রু কিশোরের বড় বোনের স্বামী ডা. প্যাট্রিক বিপুল বিশ্বাস বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। দেশে ফোরার পর এই প্লেব্যাক সম্রাট রাজশাহী মহানগরের মহিষবাথান এলাকায় থাকা তার বোন ডা. শিখা বিশ্বাসের বাসায় ছিলেন। তার ওই বাড়িটির একটি অংশেই রয়েছে ক্লিনিক। সেখানেই চিকিৎসা চলছিল এন্ড্রু কিশোরের। তবে গতকাল রোববার (০৫ জুলাই) থেকে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটে। তাই এন্ড্রু কিশোরের সুস্থতায় প্রাণ খুলে দোয়া করার জন্য সবার কাছে অনুরোধ করেছিলেন স্ত্রী লিপিকা এন্ড্রু। সেখানেই তারা চিকিৎসা চলছিল। এর পর তার শারীরিক অবস্থার কিছুটা অবনতি ঘটনায় সোমবার (০৬ জুলাই) দুপুরে বাড়িতে রেখেই তাকে অক্সিজেন সাপোর্ট নেওয়া হয়। এর পর সন্ধ্যায় তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। ক্যান্সার আক্রান্ত এন্ড্রু কিশোরকে দেখাশোনার দায়িত্বে থাকা শফিকুল আলম বাবু জানান, দেশে ফিরলেও এন্ড্রু কিশোরের শারীরিক অবস্থা ভালো যাচ্ছিল না। রোববার (৫ জুলাই) সকালে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটে। কারও সঙ্গে কথা বলার মতো অবস্থাতেই ছিলেন না তিনি। বিকেলে এন্ড্রু কিশোরের জন্য পরিবারের পক্ষ থেকে সবার কাছে দোয়া চাওয়া হয়েছিল। শফিকুল আলম বাবু জানান, প্রায় ৯ মাস পর সিঙ্গাপুর থেকে গত ১১ জুন দেশে ফিরেন সংগীতশিল্পী এন্ড্রু কিশোর। ২০ জুন থেকে তিনি রাজশাহীতে ছিলেন। তবে গুরুতর অসুস্থ ছিলেন। কারও সঙ্গে কথা বলতে পারছিলেন না তিনি। দেশে ফিরে কিছুটা সময় কোলাহলমুক্ত কাটাতে চেয়েছিলেন তিনি। তাই ফেরার খবরটি এতদিন কাউকে জানাননি। এ প্রসঙ্গে এন্ড্রু কিশোর কিছুদিন আগে বলেছিলেন, কয়েক দিন হলো দেশে এসেছি। কিছুটা সময় একান্তে থাকতে চেয়েছি। তাই পরিবারের বাইরে কাউকে জানাইনি। তাছাড়া শরীরের অবস্থাও খুব বেশি ভালো নয়। ডাক্তার কড়া নির্দেশ দিয়ে বলেছেন, কোলাহলমুক্ত থাকতে হবে-সেই নির্দেশনা মেনেই চলছি। চেকআপের জন্য তিন মাস পর পর সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালে যাওয়ার কথা ছিল। গত বছরের ৯ সেপ্টেস্বর শরীরের নানা জটিলতা নিয়ে সিঙ্গাপুর চিকিৎসা করাতে গিয়েছিলেন তিনি। ছয়টি ধাপে তাকে মোট ২৪টি কেমোথেরাপি দেওয়া হয়েছে। চিকিৎসক জানিয়েছিলেন, কয়েক মাস পরপর নিয়মিত চেকআপ করাতে হবে তাকে। এর আগে মার্চ মাসের শেষ সপ্তাহে দেশে ফিরতে চেয়েছিলেন এন্ড্রু কিশোর। কিন্তু করোনা ভাইরাসের কারণে দেশে ফেরা হয়নি তার। অবশেষে গত ১১ জুন বিশেষ ফ্লাইটে দেশে ফেরেন তিনি। ১৯৭৭ সালে মেইল ট্রেন সিনেমার মধ্য দিয়ে প্লেব্যাকে যাত্রা শুরু করেন এন্ড্রু কিশোর। এরপর আটবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন তিনি। জীবনের গল্প আছে বাকি অল্প, হায়রে মানুষ রঙিন ফানুস, ডাক দিয়াছেন দয়াল আমারে, আমার সারা দেহ খেয়ো গো মাটি, আমার বুকের মধ্যে খানে সহ অসংখ্য জনপ্রিয় ও কালজয়ী গান উপহার দিয়েছেন শ্রোতাদের। তার শরীরে ক্যানসার ধরা পড়ার আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকে চিকিৎসার জন্য ১০ লাখ টাকা সহায়তা করেছিলেন। পাশাপাশি গো ফান্ড মি নামে এক ওয়েবসাইটের মাধ্যমে তহবিল সংগ্রহ করা হয়। সহশিল্পীদের মধ্যেও অনেকে তার পাশে দাঁড়ান। কিন্তু চিকিৎসায় তার সুস্থতা আসেনি।

জাতীয় পাতার আরো খবর