রবিবার, আগস্ট ১৮, ২০১৯
দেশের বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলায় সরকার প্রস্তুত,স্থাপন করা হয়েছেকন্ট্রোল রুম
১৩জুলাই২০১৯,শনিবার,স্টাফ রিপোর্টার,নিউজ একাত্তর ডট কম:এখন বৃষ্টি, বন্যা হচ্ছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশের কোথায় কী ঘটছে তা প্রতিনিয়ত খবর নিচ্ছেন তারা। যার যার দায়িত্ব সবাই পালন করছে। এখানে শৈথিল্য নাই।শুক্রবার গণভবনে দলের উপদেষ্টা পরিষদ ও কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠকের আগে দেওয়া বক্তব্যে আওয়ামী লীগ সভাপতি এ কথা বলেন। তিনি প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় সরকারের পাশাপাশি দলের নেতা-কর্মীদেরকেও সম্পৃক্ত হওয়ার আহ্বান জানান।প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলার সক্ষমতা বাংলাদেশের রয়েছে। এখন বলার প্রয়োজন হয় না। এমনভাবে সিস্টেম করা আছে যেকোন প্রাকৃতিক দূর্যোগ আসলে কার কী করণীয় সঙ্গে সঙ্গে তারা সেই কাজগুলো করে।আমাদের রাজনৈতিক দলকেও সক্রিয় থাকতে হবে। যে কোন দুর্যোগ মোকাবেলায় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা মানুষের পাশে দাঁড়ায়।আমরা মানুষকে অবহেলা করে রাষ্ট্র পরিচালনা করি না। আমরা মানুষের সুখ-দুঃখের সাথী হয়ে, মানুষের বিপদে তাদের পাশে দাঁড়াব। মানুষের কল্যাণে কাজ করার নীতি নিয়ে কাজ করি বলেই আজকে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি।বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর দেশ গড়তে বঙ্গবন্ধুর চেষ্টার কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মাধ্যমে দেশের অগ্রযাত্রাকে ব্যাহত করা হয়।২১ বছর (১৯৯৬) পরে আমরা যখন ক্ষমতায় আসি তখন আমাদের লক্ষ্যই ছিল অর্থনৈতিকভাবে বাংলাদেশকে স্বাবলম্বী করা। বাংলাদেশকে মর্যদাশীল জাতি হিসাবে গড়ে তোলা। বাংলাদেশ যেন বিশ্বের বুকে তাদের হারানো যেন ফিরে পায় সেটা আমাদের প্রচেষ্টা ছিল। কিন্তু তখন আমরা পাঁচবছর ক্ষমতায় থাকতে পেরেছিলাম। ওই পাঁচবছরে আমরা যথেষ্ট উন্নয়ন কাজ করেছিলাম। কিন্তু সেটার ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে পারেনি। এরপর ২০০৮ সালের নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে সরকার গঠনের এখন ২০১৯ পর্যন্ত আমরা ক্ষমতায় আছি। এই এক দশকের মধ্যে আজকে বাংলাদেশ সমগ্র বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল। আমাদের এই চলার পথ সহজ ছিলো তা না, কঠিন ছিলো। পদে পদে বাধা, অগ্নিসন্ত্রাস, খুন, নির্যাতন অনেক কিছু সহ্য করতে হয়েছে। তারপরেও আমরা কিন্তু এগিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছি।আমরা যে উন্নয়নশীল দেশ হিসাবে স্বীকৃতি পেয়েছি তা ধরে রাখা। যার জন্য রাজনৈতিক শক্তি খুব প্রয়োজন, সংগঠন প্রয়োজন। জনগণের সমর্থন প্রয়োজন। আজকে বাংলাদেশকে আমরা এখানে নিয়ে আসতে পেরেছি জনগণের শক্তির কারণে।উন্নয়নে সরকারের দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনার কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, রাজনৈতিক দল হিসাবে নিজেদের একটা চিন্তাভাবনা, পরিকল্পনা ছিল যে আমরা সরকারে আসলে কী করব? কোথায় যাব? সেগুলো তৈরি করা ছিলো বলেই আমরা সরকারে আসার পরেই কাজগুলো করতে পেরেছি।আগামীদিনে দেশকে কোথায় নিয়ে যেতে চাই, সেই পরিকল্পনাও আমাদের রয়েছে। সেই প্রস্তুতিও আমাদের নিতে হবে। সেই পথগুলো আমাদের ধাপে ধাপে এগিয়ে যেতে হবে। বাধাগুলো আমাদের অতিক্রম করতে হবে।এই লক্ষ্য পূরণে আওয়ামী লীগকে সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী করাও তাগিদ দেন দলের সভাপতি। বলেন, আমাদের চিন্তাচেতনার নিরিখে সমন্বিত করে প্রতি পদক্ষেপে যেন পরিকল্পনা নিয়ে সুষ্ঠুভাবে সকল বাধাকে অতিক্রম করে এগোতে পারি ।উপদেষ্টা পরিষদের সদস্যরা আমাদের থিংকট্যাঙ্কের মতো। আপনাদের সকলকে আরেকটু সক্রিয় হতে হবে। আমাদের অফিসসহ সব ব্যবস্থাই করা রয়েছে। আমাদের প্রতিটি বিষয়ের উপ-কমিটিও রয়েছে সেখানে আপনারা অনেকেই বসেন। সেখানে আপনারা মিটিং করেন সেটা অব্যাহত রাখতে হবে এবং ভবিষ্যতে আরও পরিকল্পনা নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে।দেশের কিছু লোক রয়েছে তাদের কিছুই ভালো লাগে না- এমন মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা অর্থনৈতিক ভাবে যতদূরই আগাই, কিন্তু কিছু লোকের এটাকে সবসময় ভিন্ন চোখে দেখা অভ্যাস। এরা আসলে কখনও গণতান্ত্রিক ধারাটা চায় না। গণতান্ত্রিক ধারাটা হলে আমার মনে হয় তাদের দম বন্ধ হয়ে যায়, তারা বোধহয় নিঃশ্বাস নিতে পারেন না। অস্বাভাবিক কিছু থাকলে তাদের মনে হয় তাদের দাম বাড়ে।সারা দেশের বন্যা পরিস্থিতির সার্বিক অবস্থা পর্যবেক্ষণ ও তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহের লক্ষ্যে কন্ট্রোল রুম চালু করেছে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়। আজ শুক্রবার পানিসম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক বার্তায় এ তথ্য জানানো হয়।বার্তায় বলা হয়, দেশের বন্যা পরিস্থিতির পর্যবেক্ষণ ও তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহের লক্ষ্যে সচিবালয়ের ৬ নম্বর ভবনের পঞ্চম তলায় কন্ট্রোল রুম স্থাপন করা হয়েছে। ৪২৫ নম্বর রুমে স্থাপিত কন্ট্রোল রুমের ০২৯৫৭০০২৮ ফোন নম্বরে বন্যাসংক্রান্ত তথ্য দেওয়ার জন্য জনগণকে অনুরোধ করা হয়েছে।এ ছাড়া মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের টোল ফ্রি ১০৯০ নম্বরে ফোন করার পর ৫ প্রেস করে বন্যার পূর্বাভাসসংক্রান্ত তথ্য জানা যাবে বলেও জানানো হয়েছে ওই বার্তায়।
নদী-সমুদ্রে দূষণ বন্ধ করতে হবে : পরিবেশমন্ত্রী
১২জুলাই২০১৯,শুক্রবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:নদী-সমুদ্রে দূষণ বন্ধ করতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী শাহাবউদ্দিন। তিনি বলেন, বিশ্বব্যাপী আজ সচেতনতা তৈরির সময় হয়েছে। সমুদ্র হচ্ছে পৃথিবীর শরীরের রক্তপ্রবাহ। রক্তপ্রবাহ দূষিত হলে যেমন মানুষ বাঁচে না, তেমনি সমুদ্র দূষিত হলেও পৃথিবী বাঁচবে না। শুক্রবার (১২ জুলাই) রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে পরিবেশ মন্ত্রণালয়, ইন্টারন্যাশনাল মেরিটাইম অর্গানাইজেশন ও সাউথ এশিয়া কো-অপারেটিভ এনভায়রনমেন্টাল প্রোগ্রামের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত লন্ডন প্রটোকল এর ওপর অনুষ্ঠিত এক কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পরিবেশ উপমন্ত্রী হাবিবুন নাহার ও পরিবেশ সচিব আবদুল্লাহ আল মোহসীন চৌধুরী। মন্ত্রী বলেন, পরিবেশের একটি বড় অংশ ও পানির প্রধান উৎস হচ্ছে সমুদ্র। এই প্রধান উৎসকে আমরা নষ্ট করে দিচ্ছি নানা রকম দূষণের মাধ্যমে। মানবসমাজের আচরণ দেখে মনে হয় বর্জ্য অপসারণের সবচেয়ে উপযোগী স্থান হচ্ছে সমুদ্র, যা মোটেই উচিত হচ্ছে না। বছরে ২৫০ মিলিয়ন টন বর্জ্য নিক্ষিপ্ত হচ্ছে সমুদ্রে। সবচেয়ে ভয়াবহ হচ্ছে প্লাস্টিক বর্জ্যে সমুদ্র দূষণ। তারপর রয়েছে তেলজাতীয় পদার্থ ও জাহাজ থেকে নিক্ষিপ্ত অন্যান্য বর্জ্য। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে পরিবেশ উপমন্ত্রী বলেন, শুধু সমুদ্র নয়, নদীমাতৃক এই দেশ, দেশের পরিবেশ রক্ষা করতে হলে আমাদের নদীগুলোকে দূষণের হাত থেকে রক্ষা করতে হবে। যারা নদীদূষণ করছে আমরা চেষ্টা করছি তাদের আইনের আওতায় নিয়ে আসতে। পাশাপাশি জনগণকেও এ বিষয়ে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানান তিনি। বর্জ্য ও অন্যান্য পদার্থের ডাম্পিংয়ে সামুদ্রিক দূষণ নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে ১৯৭২ সালে ৮৭টি দেশের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হয় সংক্ষিপ্ত লন্ডন কনভেনশন। সামুদ্রিক দূষণের উৎসগুলি চিহ্নিত করা, দূষণ প্রতিরোধে বর্জ্য পদার্থ ও অন্যান্য বিষয়গুলির কার্যকর নিয়ন্ত্রণ করাই ছিল ওই কনভেনশনের লক্ষ্য। তারই ধারাবাহিকতায় কনভেনশনের সিদ্ধান্তগুলো আধুনিকায়ন ও যুগোপযোগী করার জন্য ১৯৯৬ সালে স্বাক্ষরিত হয় লন্ডন প্রটোকল। বাংলাদেশসহ ৫১টি রাষ্ট্র এতে সই করে। ২০০৬ সালের ২৪ মার্চ থেকে ৫১টি রাষ্ট্রের স্বাক্ষরিত লন্ডন প্রটোকল কার্যকর হয়। অনুষ্ঠানে সাউথ এশিয়া কো-অপারেটিভ এনভায়রনমেন্টাল প্রোগ্রামের ডিরেক্টর জেনারেল ড. আবাস বাসির ও ইন্টারন্যাশনাল মেরিটাইম অর্গানাইজেশনের প্রতিনিধি অ্যান্ড্রো ব্রিকেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
আমাদের লক্ষ্য একটি মানুষও দরিদ্র থাকবে না, গৃহহারা থাকবে না :প্রধানমন্ত্রী
১২জুলাই২০১৯,শুক্রবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:সারাদেশের বন্যপরিস্থিতি বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, যে কোনো দুর্যোগ মোকাবিলার প্রস্তুতি আমাদের রয়েছে। বন্যাদুর্গত মানুষের পাশে দাঁড়াতে আমি নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানাই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারি বাসভবন গণভবনে শুক্রবার (১২ জুলাই) উপদেষ্টা পরিষদ ও কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে তিনি এ আহ্বান জানান। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা মানুষকে অবহেলা করে রাষ্ট্র চালাই না। মানুষের পাশে থেকে, বিপদে তাদের পাশে থেকে আমরা দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি। এভাবেই আমাদের দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। আমাদের লক্ষ্য একটি মানুষও দরিদ্র থাকবে না, গৃহহারা থাকবে না। কোনো মানুষ বিনা চিকিৎসায় কষ্ট পাবে না। শুক্রবার বিকেল চারটায় উপদেষ্টা পরিষদ এবং বিকেল সাড়ে চারটায় কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠক শুরু হয়। আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন। আওয়ামী লীগের দলীয় সূত্র জানায়, এ দুটি বৈঠকে দলের আগামী সম্মেলন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী এবং দলের অভ্যন্তরীণ সাংগঠনিক অবস্থা নিয়ে আলোচনা হবে। বৈঠকে উপজেলা নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে যারা নির্বাচন করেছেন এবং যারা তাদের সমর্থন করেছেন, তাদের বিরুদ্ধে শাস্তির সিদ্ধান্ত আসতে পারে। এছাড়া, দলের নেতাদের সাংগঠনিক সফরের প্রতিবেদন নিয়েও কথা হতে পারে।
দেশে ও সমাজে এতো বৈষম্য কেন? ইনু
১২জুলাই২০১৯,শুক্রবার,স্টাফ রিপোর্টার,নিউজ একাত্তর ডট কম:জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলেছেন, জঙ্গিবাদের ধ্বংসস্তূপের ওপর দলবাজি, গুন্ডামি, দুর্নীতি, লুটপাট বন্ধ করে বৈষম্যমুক্ত সুশাসনের দেশ গড়তে নতুন রাজনৈতিক চুক্তি প্রয়োজন ।শুক্রবার ঢাকা মহানগর নাট্যমঞ্চে জাসদ আয়োজিত কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি সভায় তিনি আরও বলেন, ঐক্যবদ্ধ লড়াইয়ের ফলে ২০১৯ সালে বাংলাদেশের রাজনীতি নতুন পর্বে উপনীত হয়েছে। তাই সব ক্ষেত্রে দল, মুখ না দেখে আইনের শাসনের কঠোর প্রয়োগ এবং সকল পর্যায়ে জনপ্রশাসন, পুলিশ, সরকারি কর্মকর্তাদের নিরপেক্ষতার মধ্য দিয়ে আইনের শাসন ও সুশাসনের পথ তৈরি করতে হবে। আইনের শাসন ও সুশাসনের পথ তৈরি করতে পারলেই দলবাজি, গুন্ডামি, দুর্নীতি, লুটপাট, খাদ্য ও ঔষধে ভেজাল, ধর্ষণ, নির্যাতন বন্ধ হবে। জঙ্গিবাদ, সাম্প্রদায়িকতা, ধর্মান্ধতা ও কুসংস্কারের শিকড় উপড়ে ফেলে রাজনৈতিক শান্তি টেকসই করতে হবে। সোনার বাংলা শ্মশান কেনবঙ্গবন্ধুর এমন কথা টেনে তিনি বলেন, স্বাধীন দেশে গরিব কেন? দেশে ও সমাজে এতো বৈষম্য কেন? জনগণের পাশে দাঁড়ানোর এবং জাসদকে জনগণের কণ্ঠস্বর পরিণত এবং সুশাসনের জন্য লড়াই করতে দলীয় নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি। ইনু বলেন, গত ১০ বছরে রাষ্ট্র পরিচালনার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশকে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে ফিরিয়ে এনেছি। বঙ্গবন্ধু হত্যাকারীদের বিচার হয়েছে। যুদ্ধাপরাধী রাজাকার আলবদরদের বিচার হয়েছে।
এরশাদের শারীরিক অবস্থা অপরিবর্তিত
১২জুলাই২০১৯,শুক্রবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জি এম কাদের বলেছেন, চিকিৎসকদের মূল্যায়নে সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের শারীরিক অবস্থা অপরিবর্তিত আছে। তবে, পল্লীবন্ধুর অবস্থা শংকামুক্ত নয়। আজ বেলা ১১টায় জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের বনানী অফিসে এরশাদের সর্বশেষ শারীরিক অবস্থা গণমাধ্যম কর্মীদের জানান জি এম কাদের। এসময় জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান বলেন, হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের শরীরের সংক্রমণ কমে গেছে। সংক্রমণের অবস্থা অনেকটাই স্বাভাবিক হয়ে উঠেছে। ডায়ালাইসিসের মাধ্যমে পল্লীবন্ধুর রক্তের বর্জ্য অপসারণ করা হচ্ছে। লিভার এখনো পুরোপুরি কাজ করছেনা। প্রয়োজন অনুসারে তার রক্তে বিভিন্ন উপাদান দেয়া হচ্ছে।সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সিঙ্গাপুরের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের পরামর্শে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে পল্লীবন্ধুর বিশ্বমানের চিকিৎসা চলছে। সিঙ্গাপুরের চিকিৎসকদের পরামর্শেই পল্লীবন্ধুকে বিদেশে নেয়া হচ্ছেনা। সিএমএইচ এর চিকিৎসায় সন্তোষ প্রকাশ করে জি এম কাদের বলেন এরশাদের রোগের যে চিকিৎসা হচ্ছে, বিদেশেও একই চিকিৎসা দেয়া হবে। এসময় জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য সুনীল শুভরায়, সাইফুদ্দিন আহমেদ মিলন, অ্যাডভোকেট রেজাউল ইসলাম ভূইয়া, আলমগীর সিকদার লোটন, ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যাপক ইকবাল হোসেন রাজু, শামসুল আলম মাষ্টার, যুগ্ম মহাসচিব সুলতান আহমেদ সেলিম, সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য ফখরুল আহসান শাহাজাদা, নির্মল চন্দ্র দাস, এমএ রাজ্জাক খান, কেন্দ্রীয় নেতা মিজানুর রহমান দুলাল, মোনাজাত চৌধুরী, আজিজুল হুদা সুমন উপস্থিত ছিলেন।
১০ জেলায় বন্যা, আরও অবনতি হতে পারে : প্রতিমন্ত্রী
১২জুলাই২০১৯,শুক্রবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:বিভিন্ন নদ নদীর পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ১০ জেলা বন্যাকবলিত, আরও কয়েকটি জেলাতেও বন্যা হতে পারে বলে জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান। আজ শুক্রবার দুপুরে সচিবালয়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা জানান। তিনি বলেন, আবহাওয়া অধিদফতর এবং পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী লালমনিরহাট, গাইবান্ধা, নেত্রকোনা, সিলেট, বান্দরবান, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, শেরপুরসহ ১০ জেলা বন্যাকবলিত হয়ে পড়েছে। এই ১০ জেলায় ত্রাণ মন্ত্রণালয় থেকে জরুরিভাবে ত্রাণসামগ্রী পাঠানো হয়েছে। প্রতিমন্ত্রী বলেন, শুকনো খাবার ও নগদ অর্থ দেওয়া হয়েছে জেলা প্রশাসকদের। সুষ্ঠুভাবে জেলা প্রশাসকদের দায়িত্বে ত্রাণ বিতরণ হবে। মাঠ প্রশাসনের অন্য কর্মকর্তারা সহযোগিতা করবেন। ওই সব জেলায় সরকারি কর্মকর্তাদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। তাঁদের সার্বক্ষণিক জনগণের পাশে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এনামুর রহমান বলেন, আমাদের পক্ষে বন্যা মোকাবিলা আদৌ সম্ভব নয়। আমরা সবাই সম্মিলিতভাবে বন্যা ও আপৎকালীন বন্যা পরিস্থিতিতে মানুষের দুর্ভোগ ও কষ্ট লাঘবে সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে কিছু সহযোগিতা করতে পারি। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনাও এটিই। তিনি বলেন, এর আগে আমরা ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড় ফনী যখন আঘাত হেনেছিল, ওই সময়ও আমরা একই কর্মপদ্ধতি অবলম্বন করে মানুষের ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছিলাম। এর আগে ত্রাণ প্রতিমন্ত্রীর সভাপতিত্বে সচিবালয়ে আন্তঃমন্ত্রণালয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির জরুরি বৈঠক হয়। বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব মো. শাহ কামাল, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়, নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়, পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সচিব ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। সভায় বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিরা বন্যা মোকাবিলায় তাদের প্রস্তুতির কথা তুলে ধরেন।
নিউইয়র্ক গেলেন স্পিকার
১২জুলাই২০১৯,শুক্রবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:পার্লামেন্টারি ফোরামের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বৃহস্পতিবার রাতে নিউইয়র্কের উদ্দেশে ঢাকা ছেড়েছেন। পার্লামেন্টারি ফোরাম অ্যাট দ্য ২০১৯ হাই লেভেল পলিটিক্যাল ফোরাম অন সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড রিলেটেড মিটিংয়ে তিনি ১৫ জুলাই ইউএন কনফারেন্স বিল্ডিংয়ে ‘গ্রোয়িং ইনিকোয়ালিটিস অ্যান্ড ডিসট্রাস্ট ইন গভর্নমেন্ট : ব্রেকিং দ্য সাইকেল’ শীর্ষক সেশনে আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখবেন। এ ছাড়া তিনি বিভিন্ন কর্মসূচিতে যোগ দেবেন। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। প্রতিনিধি দলের অপর সদস্য হলেন জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সিনিয়র সচিব ড. মো. জাফর আহমেদ খান। পার্লামেন্টারি ফোরাম মিটিং এবং সাইড ইভেন্ট ও ওয়ার্কশপসমূহ ১৩ থেকে ১৮ জুলাই যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে অনুষ্ঠিত হবে। স্পিকারকে বিদায় জানাতে জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত সচিব এ ওয়াই এম গোলাম কিবরিয়াসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে উপস্থিত ছিলেন। সফরশেষে স্পিকার আগামী ২০ জুলাই দেশে ফিরবেন। খবর বাসস
আগামী ২৪ ঘণ্টা ভারি বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা
১২জুলাই২০১৯,শুক্রবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:রংপুর, ময়মনসিংহ, সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগে আগামী ২৪ ঘণ্টা ভারি বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর। অন্যদিকে ঢাকার আকাশ মেঘলা থাকতে পারে। হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।আজ আষাঢ়ের ২৮ তারিখ। বর্ষার বৃষ্টি ঝরানো দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ুর সক্রিয়তার কারণে গত কয়েক দিন ধরে দেশের বেশিরভাগ স্থানে বৃষ্টি হচ্ছে। ঢাকায় খুব বেশি বৃষ্টি না হলেও গত কয়েক দিনে আকাশ মেঘাচ্ছন্ন হয়ে আছে। শুক্রবার সকাল থেকেই ঢাকার আকাশ মেঘলা রয়েছে, দেখা মিলছে না সূর্যের। শুক্রবার আবহাওয়া অধিদফতর বলছে, বাংলাদেশে মৌসুমি বায়ু সক্রিয় থাকার কারণে শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে রংপুর, ময়মনসিংহ, সিলেট, এবং চট্রগ্রাম বিভাগের কোথাও কোথাও ভারি থেকে অতি ভারি বৃষ্টি হতে পারে। আর আজকে ঢাকায় দক্ষিণ/দক্ষিণ-পূর্ব দিক থেকে ১০-১৫ কিলোমিটার/ঘণ্টায় বেগে বাতাস প্রবাহিত হতে পারে। দিনের তাপমাত্রা সাধারণত অপরিবর্তিত থাকতে পারে।
শুক্রবার বিকেলে আ.লীগের কার্যনির্বাহী পরিষদের বৈঠক
১২জুলাই২০১৯,শুক্রবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদ ও উপদেষ্টা পরিষদের বৈঠক শুক্রবার (১২ জুলাই) বিকাল ৪টায় উপদেষ্টা পরিষদ ও বিকাল সাড়ে ৪টায় কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠক শুরু হবে।বৈঠকে দলের আগামী সম্মেলন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও দলের অভ্যন্তরীণ সাংগঠনিক অবস্থা নিয়ে আলোচনা হবে ।আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারি বাসভবন গণভবনে বৈঠক দুটি হবে। এতে সভাপতিত্ব করবেন প্রধানমন্ত্রীআওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক ড. আব্দুস সোবহান গোলাপের সই করাএক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সংশ্লিষ্ট সবাইকে সময়মতো বৈঠকে উপস্থিত থাকতে অনুরোধ জানিয়েছেন।ক্ষমতাসীন দলের সূত্র জানায়, দটি বৈঠকে দলের আগামী সম্মেলন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও দলের অভ্যন্তরীণ সাংগঠনিক অবস্থা নিয়ে আলোচনা হবে। এতে উপজেলা নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে যারা নির্বাচন করেছেন এবং যারা তাদের সমর্থন করেছেন, তাদের বিরুদ্ধে শাস্তির সিদ্ধান্ত আসতে পারে। এছাড়া, দলের নেতাদের সাংগঠনিক সফরের প্রতিবেদন নিয়েও কথা হতে পারে।

জাতীয় পাতার আরো খবর