চীনে থাকা ১৭১ বাংলাদেশিকে ফেরত আনা সম্ভব নয়: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
০৮ফেব্রুয়ারী,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চেষ্টা থাকলেও চীন থেকে ১৭১ জন বাংলাদেশিকে আপাতত দেশে ফিরিয়ে আনা সম্ভব নয় বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন। শনিবার ঢাকার সোনারগাঁও হোটেলে এক অনুষ্ঠানে চীনে থাকা এসব বাংলাদেশিদের ফেরত আনার ব্যাপারে সাংবাদিকদের করা এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। চীনজুড়ে প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় এর উৎপত্তিস্থল উহান থেকে গত ১ ফেব্রুয়ারী ৩১২ বাংলাদেশিকে ফেরত আনে বাংলাদেশ সরকার। এরপর থেকেই ওই পাইলটদের অন্য দেশ ঢুকতে দিতে না চাওয়ায় বিপাকে পড়েছে বিমান। অন্যদিকে চীনের বিভিন্ন শহরে অবরুদ্ধ অবস্থায় দিন কাটানো বাংলাদেশিদের অনেকে ফেরার দিন গুণছেন। এই পরিস্থিতিতে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, যারা এখন আসতে চাচ্ছেন, তাদের জন্য আমরা অনেক খরচ করেছি। তারপরও সম্ভব হচ্ছে না। বিমানের ক্রুরা কেউ বাইরে যেতে পারছে না, বিমান কোথাও যেতে পারছে না। এমনকি সিঙ্গাপুরে পর্যন্ত যেতে পারছে না। তিনি জানান,তাদের দেশে ফেরত আনার ক্ষেত্রে একমাত্র চাইনিজ চাটার্ড ফ্লাইটে সম্ভব হত। চীন এক পর্যায়ে রাজিও হয়েছিল। কিন্তু পরে তারা না করে দিয়েছে। আমরা তো কোনো ফ্লাইট পাঠাতে পারছি না, কোনো ক্রুও যেতে চাচ্ছে না। চীনে থাকা ওই বাংলাদেশিদের অন্য সব ধরনের সহযোগিতা করা হচ্ছে জানিয়ে মোমেন বলেন, তাদের আরও অন্তত কিছুদিন সেখানে থাকতে হবে, তারপর দেশে ফিরতে হবে। তাদের খাওয়া-দাওয়া চাইনিজরা এনশিওর করছে। ২৩টি জায়গায় বাংলাদেশিরা থাকে, সবগুলো জায়গায়ই খাবার, পানি সময়মতো পাঠিয়ে দিচ্ছে তারা। তারা খাবার সঙ্কটে আছে বলে যেসব কথা শোনা যাচ্ছে, তা সঠিক না। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমাদের দূতাবাস ওদের সাথে সব সময় যোগাযোগ করছে। ৩৮৪ জনের একটা গ্রুপ কনটিনিউয়াসলি খোঁজ নিচ্ছে তাদের। মরণব্যাধি এ ভাইরাসে চীনে এখন পর্যন্ত এক মার্কিন নাগরিকসহ ৭২৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। প্রায় ২০ বছর আগে চীনের মূল ভূখণ্ড এবং হংকংয়ে সার্স ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে মৃতের সংখ্যাকেও ছাড়িয়েছে করোনা ভাইরাস। নতুন ধরনের এই ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৩০ হাজার ছাড়িয়েছে। শুধু চীন নয়, বিশ্বের প্রায় ৩০টি দেশে ছড়িয়েছে এ ভাইরাস।
বিমানে বাংলাদেশে আসা সব যাত্রীদেরই পরীক্ষা করা হবে
০৮ফেব্রুয়ারী,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে বিশ্বের যে কোনো দেশ থেকে কেউ বাংলাদেশে ঢুকলে বন্দরে স্ক্রিনিংয়ের মধ্য দিয়ে যেতে হবে বলে জানিয়েছে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর)। এতদিন শুধু চীন থেকে আসা ব্যক্তিদের পরীক্ষা করা হলেও এখন তার পরিসর বাড়ানো হচ্ছে। আজ শনিবার করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে আইইডিসিআরের নিয়মিত সংবাদ সম্মেলনে এই সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়। প্রসঙ্গত, হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর দিয়ে প্রতিদিন ২৫টি ফ্লাইটে গড়ে সাড়ে ১২ হাজার যাত্রী বাংলাদেশে আসছেন। এর মধ্যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে মাত্র চারটি ফ্লাইটে আসা চীনফেরত ৭০০ যাত্রীদের যথাযথ স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও মনিটর করত স্বাস্থ্য বিভাগ। বিমানবন্দরে কর্তব্যরত স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা এতদিন চায়না ইস্টার্ন, চায়না সাউদার্ন, ড্রাগন এয়ার ও ইউএস বাংলায় চীন থেকে আগত প্রত্যেক যাত্রীকে ফ্লাইটের কেবিন ক্রুদের মাধ্যমে মেডিকেল ডিক্লারেশন ফর্ম, স্বাস্থ্য তথ্য কার্ড ও প্যাসেঞ্জার লোকেটর ফরম বিতরণ করত। এছাড়া বিমানবন্দরে নামার পর ফ্লাইটের যাত্রীদের কাছ থেকে তারা এসব ফরম সংগ্রহ করত এবং থার্মাল স্ক্যানার ও হ্যান্ড স্ক্যানার দিয়ে যাত্রীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হতো। মাত্র চারটি ফ্লাইটের যাত্রীরা এর আওতায় থাকায় সিংহভাগ যাত্রীই স্বাস্থ্য পরীক্ষার বাইরে থেকে গেছেন। তাদের মাধ্যমে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা করছেন রোগতত্ত্ববিদরা। চীন থেকে ইতোমধ্যে দুই ডজনেরও বেশি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস। এতে মৃতের সংখ্যা সাতশ ছাড়িয়েছে। আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় বিভিন্ন দেশ সতর্কতামূলক পদক্ষেপ নিয়েছে। এ কারণে বিমানবন্দরে আসা সবগুলো বিমানকেই স্ক্রিনিংয়ের আওতায় আনা হয়েছে। বিমানবন্দরে কর্মরত স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. শাহরিয়ার সাজ্জাদ জানান, ২১ জানুয়ারি থেকে চীন থেকে আগত চারটি ফ্লাইটের যাত্রীদের মাঝে মেডিকেল ডিক্লারেশন ফর্ম, স্বাস্থ্য তথ্য কার্ড ও প্যাসেঞ্জার লোকেটর ফরম বিতরণ করার কাজ চলছিল। তবে তারা নিবিড় পর্যবেক্ষণ করে দেখেছেন চারটি নয়, ১৩টি ফ্লাইটে চীনাসহ বিভিন্ন দেশের নাগরিক আসছেন। তিনি আরও জানান, শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর দিয়ে প্রতিদিন ২৫টি ফ্লাইটে সাড়ে ১২ হাজার যাত্রী বাংলাদেশে আসেন। বৈশ্বিক করোনাভাইরাস পরিস্থিতি বিবেচনায় অধিকতর সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে রোগতত্ত্ববিদদের পরামর্শে এখন থেকে ২৫টি ফ্লাইটে আগত সকল যাত্রীদের মনিটর করা হবে। এদিকে গত বেশ কিছুদিন যাবত সকল যাত্রীকে থার্মাল স্ক্যানার ও হ্যান্ড স্ক্যানারে জ্বর পরীক্ষা করা হলেও তাদের প্রত্যেককে মেডিকেল ডিক্লারেশন ফর্ম, স্বাস্থ্য তথ্য কার্ড ও প্যাসেঞ্জার লোকেটর ফরম পূরণ করতে হয়নি। তবে এখন থেকে সকল যাত্রীর কাছ থেকে এ তিনটি কার্ডে তথ্য সংগ্রহ করা হবে বলে জানান তিনি। বাংলাদেশের সবগুলো বন্দরে আসা যাত্রীদের স্ক্রিনিং করার সক্ষমতা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের আছে কি না- এ প্রশ্নে অধ্যাপক ফ্লোরা বলেন, বিভিন্ন এয়ারলাইন্স, বন্দর কর্তৃপক্ষসহ সংশ্লিষ্ট সব পক্ষের সহযোগিতায় এ কাজটি করা হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, আমরা এয়ারলাইন্সগুলোর সহযোগিতা নিচ্ছি। ফ্লাইটের মধ্যে যে ডিক্লেয়ারেশন ফর্ম দেওয়া হয়, তাতে এয়ারলাইন্সগুলো সহায়তা করে। আমরা সম্মিলিতভাবেই করছি। এখানে এয়ারলাইন্সগুলোর সহযোগিতা খুবই জরুরি। যে বন্দরে থার্মাল স্ক্যানার নেই, সেখানে আমরা হ্যান্ডহেল্ড স্ক্যানার দিয়েছি। থার্মাল স্ক্যানার এবং হাত দিয়ে যেটা করা হয়- দুটোর কার্যক্রম একই। বিমানযাত্রীদের বিমানবন্দরে থার্মাল স্ক্রিনিংয়ের মধ্য দিয়ে নেওয়ার পাশাপাশি তাদের স্বাস্থ্য সংক্রান্ত তথ্যের একটি কার্ড পূরণ করতে হচ্ছে।
দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী
০৮ফেব্রুয়ারী,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চারদিনের সরকারি সফর শেষে ইতালি থেকে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ শনিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) সকাল ৮টার দিকে তিনি ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছান। এর আগে, প্রধানমন্ত্রী এবং তার সফরসঙ্গীদের নিয়ে এমিরেটস এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইট ইতালির স্থানীয় সময় দুপুর ১টা ৪৫ মিনিটে মিলান মালপেঁসা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে যাত্রা করে। ইতালিতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আব্দুস সোবহান সিকদার বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে বিদায় জানান। ইতালির রাজধানী রোম থেকে বৃহস্পতিবার (৫ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে প্রধানমন্ত্রী মিলান এসে পৌঁছান। এর আগে, ইতালির প্রধানমন্ত্রী জিওসিপে কঁতের আমন্ত্রণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চারদিনের সরকারি সফরে গত ৪ ফেব্রুয়ারি রোম যান। ইতালি সফরকালে ৫ ফেব্রুয়ারি ইতালির প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার সরকারি বাসভবন পালাজো চিগিতে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করেন এবং একটি আনুষ্ঠানিক মধ্যাহ্ন ভোজে অংশগ্রহণ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর আগে, তিনি রোমের ভায়া ডেল অ্যান্টারাইড এলাকার বাংলাদেশ দূতাবাসের চ্যান্সেরি ভবন উদ্বোধন করেন। ইতালির ব্যবসায়ীদের একটি প্রতিনিধি দল তার অবস্থানকালীন হোটেলে সাক্ষাৎ করেন। পরে প্রধানমন্ত্রী পার্কো দ্য প্রিনসিপি গ্র্যান্ড হোটেল অ্যান্ড স্পা তে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আয়োজিত নৈশভোজে অংশগ্রহণ করেন। প্রধানমন্ত্রী ৬ ফেব্রুয়ারি খ্রিষ্টান ক্যাথলিক সম্প্রদায়ের সর্বোচ্চ ধর্মগুরু পোপ ফ্রান্সিসের সঙ্গে ভ্যাটিক্যান সিটিতে সাক্ষাৎ করেন। তিনি ৪ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগের ইতালির শাখার উদ্যোগে পার্কো দ্য প্রিনসিপি গ্রান্ড হোটেল অ্যান্ড স্পা তে আয়োজিত এক সংবর্ধনাতেও অংশগ্রহণ করেন।
বিএনপির লোকজন হামলা করবে, এমন আশঙ্কা থেকেই ভোটাররা কেন্দ্রে আসেননি
০৬ফেব্রুয়ারী,বৃহস্পতিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বিএনপির লোকজনের হামলার আশঙ্কা থেকেই ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোটাররা কেন্দ্রে আসেননি বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহ্‌মুদ। তবে ভোটার সংখ্যা কম হলেও উপমহাদেশের মানদণ্ডে নির্বাচনে সবচেয়ে ভালো ভোট হয়েছে বলেও জানান তিনি।বৃহস্পতিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে রাজশাহী শিল্পকলা একাডেমিতে অনুষ্ঠিত রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি সভায় এসব কথা বলেন তথ্যমন্ত্রী। ঢাকা সিটি নির্বাচনে ভোটারের অনুপস্থিতির কারণ জানাতে গিয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপির লোকজন হামলা করবে, এমন আশঙ্কা থেকেই ভোটাররা কেন্দ্রে আসেননি। তথ্যমন্ত্রী বলেন, ঢাকা সিটি নির্বাচনে অংশ নিয়ে বিএনপি বলেছে, এটি আন্দোলনের অংশ। এখন বিএনপির আন্দোলন মানে মানুষ মনে করে জ্বালাও-পোড়াও, অগ্নিসংযোগ খুন। বিএনপির এই সহিংসতার আশঙ্কায় মানুষ ভোটকেন্দ্রে যায়নি। তিনি বলেন, ঢাকা সিটি নির্বাচন নিয়ে নানা রকম বিচার-বিশ্লেষণ চলছে। আমি মনে করি উপমহাদেশের মানদণ্ডে এটি সবচেয়ে ভালো নির্বাচন। এর কারণ হিসেবে তিনি বলেন, ভোটকেন্দ্রে কোনো হাঙ্গামা হয়নি। অবৈধভাবে কোনো সিল মারার ঘটনা ঘটেনি। ইভিএমে ভোটগ্রহণ করার কারণে কোনো বিশৃঙ্খলা হয়নি। এ জন্য জালভোটও পড়েনি। কারণ ইভিএমে একজনের ভোট অন্যজনের দেওয়ার সুযোগ নেই। ইভিএম প্রশ্নে বিএনপির অভিযোগ বিষয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, ইভিএম নিয়ে বিএনপি নানা অপপ্রচার চালাচ্ছে। আসলে বিএনপি প্রযুক্তিকে সব সময় ভয় পায়।
ভালভাবে সেবা দিলেই সাব-রেজিস্ট্রারদের ইমেজ সংকট দূর হবে
০৬ফেব্রুয়ারী,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, জনগণকে হয়রানি না করে ভালভাবে সেবা দিলেই সাব-রেজিস্ট্রারদের ইমেজ সংকট দূর হবে। তাই জনগণকে সেবা দিতে কার্পণ্য না করার আহবান জানিয়েছেন তিনি । বৃহস্পতিবার ঢাকায় বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে নিবন্ধন অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিদর্শক খান মো. আব্দুল মান্নান এর বিদায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় একথা বলেন তিনি। মন্ত্রী বলেন, মর্যাদা বৃদ্ধির জন্য নিবন্ধন পরিদপ্তরকে অধিদপ্তরে উন্নীত করা হয়েছে। বালাম বই সংকট দূর করা হয়েছে। নকল নবীশদের বকেয়া পরিশোধ করা হয়েছে। সাব-রেজিস্ট্রারের শূন্য পদগুলো পূরণ করা হয়েছে। তাদের দেশে-বিদেশে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। এখন শুধু জনগণকে সেবা দেওয়ার পালা। তিনি বলেন, নিবন্ধন অধিদপ্তরের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী সেবার মানোভাব নিয়ে কাজ করলেই জনগণ প্রকৃত সেবা পাবে এবং নিবন্ধন অধিদপ্তরের মর্যাদা বাড়বে। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় আইন সচিব মো. গোলম সারওয়ার সকল সাব-রেজিস্ট্রার ও জেলা রেজিস্ট্রারকে সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত অফিসে অবস্থান করার নির্দেশ দেন। তিনি বলেন, রোববার থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সকল সাব-রেজিস্ট্রার ও জেলা রেজিস্ট্রারকে অবশ্যই কর্মস্থলে উপস্থিত থাকতে হবে। এই সময়কালে ছুটি ব্যতিত কেউ কর্মস্থল ত্যাগ করতে পারবেনা। নিবন্ধন অধিদপ্তরের নতুন মহাপরিদর্শক শহীদুল আলম ঝিনুক এর সভপতিত্বে অনুষ্ঠানে নিবন্ধন পরিদপ্তরের সকল পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বিদায়ী মহাপরিদর্শকের কর্মময় জীবন নিয়ে স্মৃতিচারণ করেন। অনুষ্ঠানে যুগ্ম-সচিব বিকাশ কুমার সাহা ও উম্মে কুলসুম, সলিসিটর রুনা নাহিদ আকতারসহ আইন মন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এবং নিবন্ধন অধিদপ্তরের সর্বস্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।
শুরু হলো চার দিনব্যাপী বেসিস সফট এক্সপো
০৬ফেব্রুয়ারী,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বৃহস্পতিবার বিকেলে আন্তর্জাতিক কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) মেলার উদ্বোধন করেন রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ। একটি ডামি মোবাইলে ফোনের বাটন চেপে মেলার উদ্বোধন করেন রাষ্ট্রপতি। এই বাটন চাপার সঙ্গে সঙ্গে একটি ভিডিও তথ্যচিত্রে দেশের আইসিটি খাতের হালচাল তুলে ধরা হয়। বেসিস সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবীরের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব এনএম জিয়াউল আলম, মেলার প্লাটিনাম স্পন্সর ডাচ-বাংলা ব্যাংকের চেয়ারম্যান সায়েম আহমেদ প্রমুখ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বেসিস সফটএক্সপো ২০২০ এর আহ্বায়ক এবং বেসিস-এর সহ-সভাপতি (অর্থ) মুশফিকুর রহমান। বিশ্বায়নের প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে দেশে নতুন প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়ানোর ওপর গুরুত্ব দিলেন শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন। তিনি বলেন, তারুণ্য শক্তিকে আমরা সহজেই আইটি দক্ষ জনবল গঠন করে রেমিটেন্স বাড়াতে পারি। তথ্য-প্রযুক্তির উদ্ভাবনের মাধ্যমে জ্ঞান ভিত্তিক শিল্প গড়ে তুলতে পারি। তথ্য প্রযুক্তির ব্যাপক উৎকর্ষতায় বিশ্ব আজ গ্লোবাল ভিলেজ। আর আজ চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের ফলে শিল্প উৎপাদনে রোবটিক ও আর্টিফিশিয়াল ইন্টিলিজেন্সের প্রয়োগ বাড়ছে। এ ধরনের নতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করে শিল্পোন্নত দেশগুলো উৎপাদনের সাফল্যের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রেখেছে। আমাদেরকেও নতুন প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়াতে হবে। প্রদর্শনী এলাকাকে ১০টি জোনে ভাগ করা হয়েছে। ইন্ডাস্ট্রি ৪.০ জোন এবং এক্সপেরিয়েন্স জোন বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের সক্ষমতা তুলে ধরবে। রয়েছে ভ্যাট জোন, ডিজিটাল এডুকেশন জোন, ফিনটেক জোন, উইমেন জোন এবং বরাবরের মতো রয়েছে সফটওয়্যার সেবা প্রদর্শনী জোন, উদ্ভাবনী মোবাইল সেবা জোন, ডিজিটাল কমার্স জোন, আইটিইএস ও বিপিও জোন।
প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে পোপের সাক্ষাৎ
০৬ফেব্রুয়ারী,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ ভ্যাটিকান সিটিতে ক্যাথোলিক খ্রিষ্টানদের আধ্যাত্মিক নেতা পোপ ফ্রান্সিসের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন। প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহ্সানুল করিম বলেন, প্রধানমন্ত্রী আজ সকালে ইতালির রাজধানী রোমের নিকটে অবস্থিত ভ্যাটিকান সিটি যান এবং পোপের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী সেখানে কিছু সময় অবস্থান করেন এবং পোপের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর ছোট বোন শেখ রেহানা ও তাঁর মেয়ে সায়মা ওয়াজেদ হোসেন উপস্থিত ছিলেন। শেখ হাসিনা আজ বিকেলে একটি ট্রেনে ইতালির মিলান নগরীর উদ্দেশে রওয়ানা দিবেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতালির প্রধানমন্ত্রী জিউসেপ কোঁতের আমন্ত্রণে মঙ্গলবার বিকেলে চার দিনের সরকারি সফরে ইতালি পৌঁছেন।
২০২৩ সালে স্যাটেলাইট ২ উৎক্ষেপণ : মোস্তাফা জব্বার
০৬ফেব্রুয়ারী,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, দেশের দ্বিতীয় স্যাটেলাইট ২০২৩ সালের মধ্যে উৎক্ষেপণের লক্ষ্য নির্ধারণ করে কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করা হচ্ছে। তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের অন্যতম অর্জন বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট ১ এর সফল উৎক্ষেপণ। এর মাধ্যমে বাংলাদেশ পরিণত হয়েছে স্যাটেলাইট ক্লাবের ৫৭তম গর্বিত সদস্যে। বর্তমান সরকারের নির্বাচনী ইশতেহারে দেশের দ্বিতীয় স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের ঘোষণা রয়েছে। বৃহস্পতিবার (০৬ ফেব্রুয়ারি) সংসদে আনোয়ার হোসেন খানের প্রশ্নের জবাবে একথা বলেন তিনি। মন্ত্রী বলেন, দেশের দ্বিতীয় স্যাটেলাইট কী ধরনের হবে এবং এর দ্বারা কি কি সেবা প্রদান করা হবে তা নির্ধারণের জন্য স্টেকহোল্ডারদের সাথে আলোচনা ও আন্তর্জাতিক পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।
৩টি উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণা
০৬ফেব্রুয়ারী,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সংসদ সদস্যদের পদত্যাগসহ মৃত্যুজনিত কারণে শূন্য হওয়া ৫টি সংসদীয় আসনের ৩টিতে উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। আসন তিনটি হচ্ছে-ঢাকা ১০, গাইবান্ধা ৩ ও বাগেরহাট ৪ আসন। আগামী ২১ মার্চ একই দিনে এসব আসনে ভোট হবে। বৃহস্পতিবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে কমিশন সভা শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এসব তথ্য জানান ইসি সিনিয়র সচিব মো. আলমগীর। তিনি বলেন, ঢাকা ১০ আসনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) মেশিন ব্যবহার করলেও অন্য ২ সংসদীয় আসনে পুরোনো পদ্ধতি ব্যালটে এই ভোট অনুষ্ঠিত হবে। ইসি সচিব বলেন, মনোনয়ন দাখিল ১৯ ফেব্রুয়ারি, যাচাই-বাছাই ২৩ ফেব্রুয়ারি, আপিল দায়ের ২৪/২৬ ফেব্রুয়ারি, আপিল নিষ্পত্তি ২৮ ফেব্রুয়ারি, প্রত্যাহার ১৯ ফেব্রুয়ারি, প্রতীক বরাদ্দ ১ মার্চ, ভোট ২১ মার্চ। এদিকে ঢাকা ১০ আসনে উপ-নির্বাচনে যে ক’জন মনোনয়নপ্রত্যাশী রয়েছেন, তাদের মধ্যে আলোচনায় রয়েছেন দেশের ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার্স অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এফবিসিসিআই) সাবেক সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন। গাইবান্ধা ৩ আসনে উপ-নির্বাচনে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের মধ্যে আলোচনার শীর্ষে রয়েছেন কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সংরক্ষিত নারী আসনের সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট উম্মে কুলসুম স্মৃতি। এছাড়া বাগেরহাট ৪ আসনে উপ-নির্বাচনে আলোচনায় রয়েছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য আমিরুল আলম মিলন, সাবেক অতিরিক্ত আইজিপি অধ্যাপক আব্দুর রহিম খান ও ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি এ এইচ এম বদিউজ্জামান সোহাগ। প্রসঙ্গত, ৫টি শূন্য আসনের মধ্যে ঢাকা ১০ আসনের সাংসদ সদস্য ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস মেয়র পদে নির্বাচন করতে গত ২৯ ডিসেম্বর সংসদ সদস্য পদ থেকে পদত্যাগ করেন। গত ২৭ ডিসেম্বর গাইবান্ধা-৩ আসনের সংসদ সদস্য মো. ইউনূস আলী, ১০ জানুয়ারি বাগেরহাট ৪ আসনের সংসদ সদস্য ডা. মোজাম্মেল হোসেন মারা গেলে তাদের মূত্যুতে আসনগুলো শূন্য হয়ে পড়েছিল। এই তিনটি আসনের উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে। এছাড়াও গত ১৮ জানুয়ারি বগুড়া ১ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নান এবং গত ২১ জানুয়ারি যশোর ৬ অসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক মারা গেছেন। তাদের মূত্যুতে আসনগুলো শূন্য হয়ে আসে। এই দুইটি আসনে পড়ে তফসিল ঘোষণা করা হবে।

জাতীয় পাতার আরো খবর