স্বপ্নের পদ্মা সেতু ২৭০০ মিটার দৃশ্যমান
১১ডিসেম্বর,বুধবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: পদ্মা সেতুর ১৭ ও ১৮ নম্বর পিয়ারের ওপর বসানো হয়েছে ১৮তম স্প্যান। এতে করে দৃশ্যমান হয়েছে সেতুর ২ হাজার ৭০০ মিটার অবকাঠামো। আজ বুধবার দুপুর ১টার দিকে ১৮তম স্প্যান বসানোর কাজ শেষ হয়। তবে চলতি মাসে আরও দুটি স্প্যান তোলার পরকিল্পনার কথা জানয়িছেনে সংশ্লষ্টি পদ্মা সেতুর প্রকল্প পরচিালক। এর আগে গত ১৯ নভেম্বর ১৬তম, ২৬ নভেম্বর ১৭তম স্প্যান বসানোর কাজ শেষ হয়েছে। ১৭তম স্প্যান বসানোর ১৪ দিনের মাথায় বসানো হলো ১৮তম স্প্যানটি। পদ্মা সেতুর সহকারী প্রকৌশলী হুমায়ন কবীর জানান, সকাল সাড়ে ৯টার দিকে মাওয়ার কন্সট্রাকশন ইয়ার্ড-১ থেকে ৬০০ টন ধারণ ক্ষমতার তিয়ান-ই ভাসমান ক্রেনে করে নির্দিষ্ট স্থানে স্প্যানটি আনা হয়। সকাল ১০টা ২০ মিনিটের মধ্যেই নির্ধারিত পিলারের সামনে এসে পৌঁছায়। পদ্মাসেতুতে মোট ৪২টি পিলারের মধ্যে বর্তমানে কাজ সম্পন্ন হয়েছে ৩৩টির। সেতুতে ২ হাজার ৯৫৯টি রেলওয়ে স্ল্যাবের মধ্যে ৪১০টি স্ল্যাব বসানো হয়েছে। ২ হাজার ৯১৭টি রোডওয়ে স্ল্যাবের মধ্যে ১২৫টি বসানো শেষ হয়েছে। পদ্মা সেতুর মোট ৪১টি স্প্যানের মধ্যে চীন থেকে মাওয়ায় এসেছে ৩১টি স্প্যান। এর মধ্যে ১৭টি স্প্যান স্থায়ীভাবে বসে গেছে। ৬ দশমিক ১৫ দৈর্ঘ্যের দ্বিতল সেতুটি কংক্রিট ও স্টীল দিয়ে নির্মাণ করা হচ্ছে। চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না রেলওয়ে মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং গ্রুপ কোম্পানি লিমিটেড মূল সেতু নির্মাণের কাজ করছে। প্রকল্প পরিচালক শফিকুল ইসলাম জানান, এখন পর্যন্ত পুরো প্রকল্পের কাজে অগ্রগতি হয়েছে ৭৬ ভাগ। এর মধ্যে সেতুর কাজে অগ্রগতি হয়েছে ৮৫ ভাগ আর নদী শাসনের কাজ ৬৫ ভাগ।
২০৩০ সালের আগেই কুষ্ঠ মুক্ত হবে বাংলাদেশ : প্রধানমন্ত্রী
১১ডিসেম্বর,বুধবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সঠিক ব্যবস্থা নিলে ২০৩০ সালের আগেই বাংলাদেশ কুষ্ঠ রোগ মুক্ত হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ বুধবার সকালে রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে আয়োজিত কুষ্ঠবিষয়ক জাতীয় সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। শেখ হাসিনা বলেন, প্রাথমিক পর্যায়ে যদি রোগ শনাক্ত এবং চিকিৎসার ব্যবস্থা নেওয়া যায়, তাহলে আর এটা বৃদ্ধি পায় না। এর ফলে সহজেই এ রোগ নিরাময় সম্ভব। সারা দেশে তিন হাজারেরও বেশি মানুষ এই রোগে আক্রান্ত হচ্ছে বলেও জানান সরকারপ্রধান। তিনি বলেন,এখনো যেসব এলাকায় কুষ্ঠ রোগের প্রাদুর্ভাব রয়েছে, সেসব এলাকার দিকে আমাদের আরও বিশেষভাবে দৃষ্টি দিতে হবে। তাহলে আমি মনে করি, আমরা ২০৩০ সালের আগেই বাংলাদেশকে কুষ্ঠ রোগ মুক্ত করতে সক্ষম হবো। কুষ্ঠ রোগীদের সুচিকিৎসা ও পুনর্বাসনে সরকার কাজ করে যাচ্ছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, কুষ্ঠ রোগীদের ঘরে বাইরে আসার সুযোগ করে দিতে ও স্বাভাবিক জীবন দিতে আইনে পরিবর্তন আনা হয়েছে। আইন সংশোধনের মাধ্যমে তাদের সুচিকিৎসার ব্যবস্থা ও বাইরের পৃথিবী দেখার সুযোগ করে দিয়েছি। এ বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধিতেও কাজ করছি। কুষ্ঠ নির্মূলে গবেষণার প্রয়োজন উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, কুষ্ঠরোগ কোনো অভিশাপ নয়। জীবাণুর সংক্রমণে এ রোগের বিস্তার। এর জন্য দেশীয় গবেষকদের ;প্রয়োজনীয় গবেষণায় আত্মনিয়োগের আহ্বান জানান তিনি। পাশাপাশি কুষ্ঠ রোগীদের সহানুভূতির সঙ্গে দেখতে সবার প্রতি আহ্বান জানান সরকারপ্রধান। তিনি বলেন,সাধারণ মানুষকে আমি বলব, এরা সমাজেরই একজন। তাই তাদের সহানুভূতির সঙ্গে দেখা, তাদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করুন। সম্মেলনে দেশের কুষ্ঠ রোগীদের নিয়ে যেসব বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা কাজ করছে তাদের প্রশংসা করেন প্রধানমন্ত্রী। সেইসঙ্গে এ কাজে আরও অংশগ্রহণ বাড়ানোর জন্য বিভিন্ন উন্নয়ন সংস্থাকে এগিয়ে আসারও আহ্বান জানান শেখ হাসিনা।
যুদ্ধাপরাধী টিপু সুলতানের ফাঁসি
১১ডিসেম্বর,বুধবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় সাবেক শিবির নেতা রাজশাহীর বোয়ালিয়ার মো. আব্দুস সাত্তার ওরফে টিপু রাজাকার ওরফে টিপু সুলতানের ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। আজ বুধবার বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল এ রায় ঘোষণা করেন। এটি হচ্ছে ট্রাইব্যুনালের ৪১তম রায়। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে প্রসিকিউটর হিসেবে ছিলেন মোখলেসুর রহমান বাদল। তার সঙ্গে ছিলেন সাবিনা ইয়াসমিন খান মুন্নি। আসামিপক্ষে ছিলেন আইনজীবী গাজী এম এইচ তামিম। এর আগে আসামি টিপু সুলতানের উপস্থিতিতে গত ১৭ অক্টোবর উভয়পক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষমাণ (সিএভি) রাখেন আদালত। পরে রায় ঘোষণার জন্য আজকের দিন ঠিক করেন ট্রাইব্যুনাল। গত বছরের ২৭ মার্চ এ আসামির বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন চূড়ান্ত করা হয়। এরপর আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিল করা হয়। পরে একই বছরের ৮ আগস্ট তার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়। অভিযোগ চূড়ান্তের পর তদন্ত সংস্থার সমন্বয়ক আব্দুল হান্নান খান বলেছিলেন,মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে রাজশাহীর বোয়ালীয়ায় ১০ জনকে হত্যা, দুজনকে দীর্ঘদিন আটকে রেখে নির্যাতন, ১২ থেকে ১৩টি বাড়ির মালামাল লুট করে আগুন দেওয়ার অপরাধ উঠে এসেছে তদন্তে। এসব অপরাধে এ আসামির বিরুদ্ধে দুটি অভিযোগ আনা হয়েছে তদন্ত প্রতিবেদনে। তিনি আরও বলেন,মুক্তিযুদ্ধের প্রথম দিকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়েও গণহত্যা চালিয়েছিল পাকিস্তানি আর্মি ও স্থানীয় রাজাকাররা। স্থানীয় সেই সব রাজাকারদের মধ্যে টিপু সুলতানই বেঁচে আছেন। তাকে আমরা গ্রেপ্তার করেছি। মুক্তিযুদ্ধের সময় আসামি জামায়াতে ইসলামী ছাত্র সংগঠন ইসলামী ছাত্র সংঘ পরবর্তীতে ইসলামী ছাত্র শিবিরের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। ১৯৮৪ সালের পর থেকে রাজনৈতিক কোনো কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ততা পাওয়া যায়নি বলে উল্লেখ করেন আব্দুল হান্নান খান। তিনি বলেন, আসামি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতিতে পড়াশোনা করেন। ১৯৮৪ সালে নাটোরের লালপুর উপজেলার গোপালপুর ডিগ্রি কলেজে সহকারী অধ্যাপক হিসেবে যোগ দেন। ২০১১ সালে অবসরে যান। তদন্ত সংস্থা জানায়, ১৯৮৪ সালের পর সরাসরি কোনো রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সম্পৃক্ত না থাকলেও আসামি জামায়াতে ইসলামীর সমর্থক। ১৯৭৪ সালের ১০ আগস্ট তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। যদিও পরবর্তী সময়ে তিনি ছাড়া পান। ২০১৮ সালের ১ জানুয়ারি বিস্ফোরক আইনের মামলায় মতিহার থানার পুলিশ তাকে ফের গ্রেপ্তার করে। পরবর্তীতে তাকে এ মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়। আব্দুস সাত্তারের বিরুদ্ধে যে দুটি অভিযোগ আনা হয়েছে সেগুলো হলো- ১৯৭১ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর দুপুর দেড়টা থেকে পরদিন মধ্যরাত পর্যন্ত আসামি মো. আব্দুস সাত্তার ওরফে টিপু সুলতান ওরফে টিপু রাজাকার স্থানীয় অন্যান্য রাজাকার ও পাক সেনারা বোয়ালিয়া থানার সাহেব বাজারের এক নং গদিতে (বর্তমানে জিরো পয়েন্ট) হামলা চালিয়ে আওয়ামী লীগ নেতা বাবর মণ্ডলকে আটক করে। পরে তাকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শামসুজ্জোহা হলে স্থাপিত সেনা ক্যাম্পে নিয়ে দিনভর নির্যাতন করার পর গুলি করে হত্যা করে মরদেহ মাটিচাপা দেয়। ১৯৭১ সালের ২ নভেম্বর রাত আনুমানিক ২টায় এ আসামি, স্থানীয় রাজাকার ও ৪০ থেকে ৫০ পাক সেনা বোয়ালিয়া থানার তালাইমারী এলাকায় হামলা চালায়। এ হামলায় আওয়ামী লীগ নেতা চাঁদ মিয়া, আজহার আলী শেখসহ ১১ জনকে আটক করে নির্যাতন চালায়। এ সময় তারা তালাইমারী এলাকার ১২ থেকে ১৩টি বাড়ি লুট করে। পরে আটক ১১ জনকে রাবির শহীদ শামসুজ্জোহা হলে স্থাপিত অস্থায়ী ক্যাম্প ও টর্চার সেলে নিয়ে গিয়ে ৪ নভেম্বর মাঝরাতে ৯ জনকে গুলি করে হত্যা করে মাটিচাপা দেয়।-আলোকিত বাংলাদেশ
এসএ গেমসে পদক জয়ীদের গণভবনে আমন্ত্রণ প্রধানমন্ত্রীর
১০ডিসেম্বর,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ১৩তম এসএ গেমসে ১৯টি স্বর্ণ জিতেছে বাংলাদেশ। যা নিজেদের ইতিহাসে সর্বোচ্চ। এবারের আসরের পদক জয়ীদের গণভবনে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রথম সাত দিনে লাল-সবুজের প্রতিনিধিদের ঝুলিতে ছিল ৭টি স্বর্ণপদক। এরপর অষ্টম দিনে শ্রেষ্ঠত্বের প্রমাণ দেয়া শুরু করেন আর্চাররা। একদিনেই তুলে নেন ছয়টি সোনালী পদক। একই দিন নারী ক্রিকেটাররা শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ছিনিয়ে নেন সপ্তম স্বর্ণ। প্রতিযোগিতার অষ্টম দিন শেষে বাংলাদেশের মোট সংগ্রহ দাঁড়ায় ১৪টি স্বর্ণপদক। সোমবার দক্ষিণ এশিয়ার অলিম্পিক খ্যাত এই আয়োজনের নবম দিনে বাংলাদেশের আর্চাররা আরও চারটি স্বর্ণ এনে দেন। দিনের শেষ ভাগে পঞ্চম স্বর্ণ এনে দেয় বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-২৩ ক্রিকেট দল। আর এতেই বাংলাদেশের খেলাধুলার ইতিহাসে তৈরি হয় নতুন রেকর্ড।
মানবাধিকার রক্ষায় প্রয়োজন আইনের শাসন নিশ্চিত করা: প্রধানমন্ত্রী
১০ডিসেম্বর,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: মানবাধিকার রক্ষায় সব থেকে প্রয়োজন আইনের শাসন নিশ্চিত করা। অপরাধী যেই হোক তাকে শাস্তি পেতেই হবে। এটাই আমাদের সিদ্ধান্ত। বললেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে এক আলোচনায় তিনি এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা একদিকে যেমন মানবাধিকার সংরক্ষণের ব্যবস্থা নিচ্ছি। পাশাপাশি মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, দুর্নীতির বিরুদ্ধেও আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। এগুলো সমাজকে নষ্ট করে, ধ্বংস করে। কাজেই সমাজ থেকে এই জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস, মাদক, দুর্নীতি এটাও প্রতিরোধ করতে হবে। সম্প্রতি নারী নির্যাতনসহ চাঞ্চল্যকর কিছু ঘটনার বিচার দ্রুত কার্যকর করার জন্য বিচারবিভাগসহ সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি ধন্যবাদ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা দ্রুত সেটার ব্যবস্থা নিয়েছি। বিচার যে স্বাধীনভাবে কাজ করছে, সেজন্যই তা সম্ভব হয়েছে। আমরা বিচার বিভাগকে স্বাধীনতা নিশ্চিত করে দিয়েছি। মানুষ যেন ন্যায় বিচার পায় আমরা এইটুকুই চাই। শেখ হাসিনা বলেন, আধুনিক প্রযুক্তি জ্ঞানসম্পন্ন হয়ে আমাদের নতুন প্রজন্ম গড়ে উঠবে, সেটাই আমাদের লক্ষ্য। তরুণরাই তো এদেশের আগামীর ভবিষ্যৎ। তারাই গড়ে তুলবে বাংলাদেশ এবং তারাই এই অভিযাত্রাকে আরও বেশি গতিবেগ এনে দেবে।
বিশ্ব মানবাধিকার দিবস আজ
১০ডিসেম্বর,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আজ মঙ্গলবার (১০ ডিসেম্বর) মানবাধিকার দিবস। রাজধানীসহ সারাদেশে দিবসটি উদযাপনের উদ্যোগ নিয়েছে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন। দিবসটির এবারের প্রতিপাদ্য মানবাধিকার সুরক্ষায় তারুণ্যের অভিযাত্রা। জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা ফারহানা সাঈদ জানান, এ বছর রাজধানী ঢাকাসহ দেশের সকল বিভাগ এবং জেলা ও উপজেলায় মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে বিশেষ কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। সকাল ১০টায় ঢাকায় সোনারগাঁ হোটেলে মানবাধিকার দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির আসন অলঙ্কৃত করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক ও জাতিসংঘ আবাসিক সমন্বয়ক মিয়া সেপ্পো। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান নাছিমা বেগম এবং স্বাগত বক্তব্য রাখবেন কমিশনের সার্বক্ষণিক সদস্য ড. কামাল উদ্দিন আহমেদ। অনুষ্ঠানটি বাংলাদেশ টেলিভিশন এবং বাংলাদেশ বেতারে সরাসরি সম্প্রচার করা হবে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পর তরুণ ও বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের অংশগ্রহণে সামাজিক মূল্যবোধ, মানবাধিকার ও তারুণ্য শীর্ষক এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। ফারহানা সাঈদ জানান, এ বছর সকল বিভাগ, জেলা ও উপজেলায় মানবাধিকার কমিশনের উদ্যোগে এবং স্থানীয় প্রশাসনের সহায়তায় র্যালি এবং আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। দিবস উপলক্ষে দৈনিক পত্রিকাসমূহে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, স্পিকার, আইনমন্ত্রী, কমিশনের চেয়ারম্যানের বাণীসম্বলিত ক্রোড়পত্র প্রকাশিত হবে। এছাড়াও বিভিন্ন চ্যানেলে প্রামাণ্যচিত্র এবং মানবাধিকার দিবসের থিমসং প্রচার করা হবে।
ডাকসু নেতাদের কর্মকাণ্ড আমার ভালো লাগে না : রাষ্ট্রপতি
০৯ডিসেম্বর,সোমবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নেতাদের কর্মকাণ্ড ভালো লাগে না বলে জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ আবদুল হামিদ। আজ সোমবার ঢাবির ৫২তম সমাবর্তন অনুষ্ঠানে তিনি একথা জানান। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাষ্ট্রপতি বলেন, ডাকসু নেতাদের কর্মকাণ্ড আমার ভালো লাগে না। তাদের উচিত ছাত্রদের কল্যাণের কাজে প্রাধান্য দেওয়া। তাদের নিয়ে এখন নানান কথা শোনা যাচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের ভর্তিতে নানা ভোগান্তির বিষয় উল্লেখ করে আবদুল হামিদ বলেন, এ বিষয়ে তো ডাকসু নেতাদেরই কথা বলার ছিল, আমি বলব কেন? তিনি আরও বলেন, ডাকসু নির্বাচনের নানান ত্রুটির কথা আমি শুনতে পেয়েছি। আশা করি, আগামীতে এ রকমের ভুলত্রুটি হবে না। বিশ্ববিদ্যালয়ের সান্ধ্যকালীন কোর্সের তীব্র সমালোচনা করে রাষ্ট্রপতি বলেন, সান্ধ্যকালীন কোর্সের মান এবং এর কারণে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস মেলায় পরিণত হয়। এ বিষয়ে সুচিন্তিত পদক্ষেপ নিতে হবে। ছাত্রসমাজকে রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়ে আবদুল হামিদ বলেন,মেডিসিন বিদেশের জন্য একভাবে তৈরি করা হয়, ঢাকার জন্য একভাবে তৈরি করা হয়, গ্রামাঞ্চলের মানুষের জন্য আরেকভাবে তৈরি করা হয়। ছাত্রসমাজকে বিষয়টি নিয়ে রুখে দাঁড়াতে হবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে ৫২তম সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে সমর্থন বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিজ্ঞানী ড. তাকাকি কাজিতা।
গার্লফ্রেন্ডের বাবা-মাকে দায়ী করে স্টামফোর্ড ছাত্রের আত্মহত্যা
০৯ডিসেম্বর,সোমবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: রাজধানীর ধোলাইখালের একটি বাসা থেকে সায়েম হাসান শান্ত (২১) নামের এক স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রোববার সন্ধ্যায় নিজ কক্ষে ফ্যানের সঙ্গে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন শান্ত। এর আগে প্রেমের সম্পর্ক মেনে না নিয়ে মামলা দিয়ে হয়রানির জন্য প্রেমিকার মা-বাবাকে দায়ী করে ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন তিনি। সূত্রাপুর থানার ওসি কাজী ওয়াজেদ আলী বলেন, ময়নাতদন্তের জন্য লাশ মিটফোর্ড হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ধানমণ্ডি শাখার শিক্ষার্থী শান্ত বাবা-মায়ের একমাত্র সন্তান ছিলেন। শান্তর বাবা রিপন গণমাধ্যমকে বলেন,শান্তর সঙ্গে পুরান ঢাকার লক্ষ্মীবাজার এলাকার একটি মেয়ের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। গত ২৬ নভেম্বর মেয়েটি আমার বাড়িতে চলে আসে। এরপর তার বাবাসহ স্বজনরা নিতে এলেও মেয়েটি যায়নি। তখন মেয়েটিকে মারধর করে চলে যায় তারা। এরপর মেয়েটির বাবা কোতোয়ালি থানায় অপহরণ মামলা করলে শান্তকে গ্রেফতার করে পুলিশ। কয়েক দিন জেল খাটার পর গত শুক্রবার ছাড়া পায় শান্ত। এরইমধ্যে মেয়েকে বাড়িতে নিয়ে যায় তার মা-বাবা। শান্ত ছাড়া পাওয়ার পর এলাকায় অনেকেই তাকে এ নিয়ে অপমানজনক কথা বলত। এই ক্ষোভে সন্ধ্যায় নিজ রুমে ফ্যানের সঙ্গে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে সে। আত্মহত্যার আগে শান্ত ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে তার মৃত্যুর জন্য প্রেমিকার মা-বাবাকে দায়ী করেছে বলে জানান তিনি। একমাত্র ছেলের আত্মহত্যায় প্ররোচনায় দায়ে মেয়েটির বাবা-মায়ের বিচার দাবি করেন শান্তর বাবা।-আলোকিত বাংলাদেশ

জাতীয় পাতার আরো খবর