জঙ্গি হামলায় ১০ জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী নিহত মালিতে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: জাতিসংঘ বলছে, উত্তর মালিতে সন্দেহভাজন ইসলামপন্থী জঙ্গিদের হামলায় তাদের শান্তিরক্ষী মিশনের ১০ কর্মী নিহত হয়েছেন। এ ছাড়া বন্দুকধারীদের গুলিতে অন্তত ২৫ চাঁদ সেনা আহত হয়েছেন। রোববার সকালে আগুয়েলহকে অবস্থিত জাতিসংঘের ক্যাম্পে জঙ্গিরা হামলা চালালে এই হতাহতের ঘটনা ঘটে। স্থানীয় গণমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুযায়ী, এটি তাদের সর্বশেষ আক্রমণ বলে দাবি করছে আল-কায়েদার উত্তর আফ্রিকান শাখা, ইসলামী মাঘরেব আল-কায়েদা। ইসলামী মিলিশিয়াদের বিপক্ষে লড়াইয়ের জন্য ২০১৩ সালে মালিতে জাতিসংঘ মিশন প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল। তার পর থেকেই জঙ্গিরা জাতিসংঘ ও মালি সৈন্যদের ওপর হামলা চালিয়ে আসছে। বেসামরিক নাগরিকসহ ১৫ হাজারের বেশি কর্মীকে জাতিসংঘের মাল্টিডাইমেনশনাল ইন্টিগ্রেটেড স্ট্যাবিলাইজেশন মিশনের (এমআইএনইউএসএমএ) অংশ হিসেবে নিযুক্ত করা হয়। কিন্তু দেশটির কিছু অংশ এখনো সরকারের নিয়ন্ত্রণে নেই।...

জাহাজডুবিতে ১৭০ জনের প্রাণহানির আশঙ্কা ভূমধ্যসাগরে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: লিবিয়ার উপকূলে দুটি পৃথক জাহাজডুবির ঘটনায় অন্তত ১৭০ জনের প্রাণহানির আশঙ্কা করা হচ্ছে। মরক্কো ও স্প্যানিশ কর্তৃপক্ষ পশ্চিম ভূমধ্যসাগরে হারিয়ে যাওয়া জাহাজ দুটি খুঁজে বের করার চেষ্টা চালাচ্ছে বলে জানায় ইতালীয় নৌবাহিনী। তবে এ জাহাজডুবিতে কতজনের প্রাণহানি ঘটেছে, তা নিশ্চিত হতে পারেনি জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক সংস্থা (ইউএনএইচসিআর)। জানা যায়, ২০১৮ সালেই ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিতে গিয়ে দুই হাজার ২০০ জনের বেশি মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক হাইকমিশনার ফিলিপো গ্র্যান্ডি এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলেন, ইউরোপের কাছেই ঘটে যাওয়া এ ঘটনায় আমরা চোখ বন্ধ করে রাখতে পারি না। ভূমধ্যসাগরীয় পশ্চিমাঞ্চলে আল-বারন সাগরে ৫৩ যাত্রী নিয়ে প্রথম নৌকাটি অদৃশ্য হয়ে যায়। যাত্রীদের একজন ২৪ ঘণ্টা সমুদ্রে কাটানোর পর তাঁকে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। মরক্কোতে তাঁর চিকিৎসা চলছে। এর মধ্যে কয়েক দিন ধরে নিখোঁজ ওই নৌকার খোঁজ করতে গিয়ে ব্যর্থ হতে হয়। এদিকে ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন ফর মাইগ্রেশন (আইওএম) অনুযায়ী, ডিংহি নামের দ্বিতীয় জাহাজটি গতকাল শনিবার লিবিয়া ছেড়ে যায়। মুখপাত্র ফ্ল্যাভিও ডি গিয়াকোমো বলেন, ওই জাহাজডুবিতে জীবিত বেঁচে ফিরে আসা যাত্রীদের তিনজন জানান, লিবিয়া ছেড়ে যাওয়ার সময় জাহাজটিতে ১২০ জন যাত্রী ছিল। এ দুর্ঘটনায় বেঁচে যাওয়া তিনজন তীব্র হাইপোথার্মিয়ায় ভুগছেন। ভুক্তভোগী ওই তিনজনকে হেলিকপ্টার দিয়ে সমুদ্র থেকে টেনে তোলা হয়। লম্পিডিউস দ্বীপে তাঁদের চিকিৎসা চলছে। আইওএম বলেছে, ২০১৯ সালের প্রথম ১৬ দিনে চার হাজার ২১৬ জন অভিবাসী সমুদ্র পাড়ি দিয়ে ইউরোপে আসার চেষ্টা করেছেন, যা কি না গত বছরের একই সময়ের মধ্যে দ্বিগুণ।...

ট্রাম্পের সঙ্গে কিমের নতুন বৈঠকের প্রস্তুতি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: উত্তর কোরিয়ার এক শীর্ষ জেনারেল বিরল এক সফরে শুক্রবার ওয়াশিংটনে পৌঁছেছেন। এ সফর চলাকালে তিনি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন বলে আশা কার হচ্ছে। দেশ দুটি নিরস্ত্রীকরণ ও দশকের পর দশক ধরে চলা বৈরি সম্পর্ক নিরসনের লক্ষ্যে নতুন করে বৈঠক চূড়ান্ত করার চেষ্টা করছে। খবর এএফপির। উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের ডান হাত হিসেবে পরিচিত কিম ইয়ং চল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মার্কিন রাজধানীতে পৌঁছান। এক সময়ের ক্রমবর্ধমান উত্তেজনা কমে আসার এক বছর পর এটি হচ্ছে সর্বশেষ শান্তি মিশন। উত্তর কোরিয়ার এ আলোচক হঠাৎ করে যুক্তরাষ্ট্রে তার পরিকল্পিত সর্বশেষ আলোচনা বাতিল করেন এবং ওই সময় প্রশাসন সাবধানতা অবলম্বন করায় তার সফরের অগ্রগতির ব্যাপারে কোন ঘোষণা দেয়া হয়নি।। উল্লেখ্য, দুই মাস আগে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেওর সঙ্গে নিউইয়র্কে তার বৈঠক করার কথা ছিল। নাম প্রকাশ না করার শর্তে আমেরিকান এক সূত্র জানান, পম্পেও ওয়াশিংটনে এক ভোজসভায় শুক্রবার কিমকে স্বাগত জানাবেন এবং পরে তারা এক সঙ্গে হোয়াইট হাউসে যাবেন বলে আশা করা হচ্ছে। ...

চট্টগ্রামে বিপিএল নিয়ে জুয়া খেলার অভিযোগে আটক ১০

অনলাইন ডেস্ক: চট্টগ্রামের কোতোয়ালি থানা এলাকায় বিপিএল নিয়ে জুয়া খেলার অভিযোগে ১০ জনকে আটক করেছে পুলিশ। আজ সোমবার সকালে নগরীর জামতলা এলাকা থেকে হাতেনাতে ওই ব্যক্তিদের আটক করা হয়। কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মহসিন বলেন, আমাদের কাছে ইদানীং খবর আসছে যে নগরীতে বিভিন্ন স্পটে অনলাইনে এবং অফলাইনে বাংলাদেশে যে এখন বিপিএল চলছে এবং বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ম্যাচ নিয়ে তরুণ বয়সের যারা, তারা কিছু আছে স্টুডেন্ট এবং নিম্ন আয়ের মানুষ, বিভিন্ন শ্রেণি পেশার, জুয়ায় একটা নেশার মতন জড়িয়ে গেছে এবং অনেক পরিবার সর্বস্বান্ত হয়ে যাচ্ছে। এই সংবাদের পরিপ্রেক্ষিতে আমরা এখন গোয়েন্দা তৎপরতা চালিয়ে অভিযান শুরু করেছি। এরই ধারাবাহিকতায় আমরা কোতোয়ালি থানাধীন ১৪ জামতলার একটা স্পট থেকে ১০ জনকে আটক করি। জিজ্ঞাসাবাদে তাঁরা সবাই জুয়া খেলার কথা স্বীকার করেন এবং সবাই নিম্ন আয়ের মানুষ বলেন ওসি। এদিকে সম্প্রতি জুয়া খেলাকে কেন্দ্র করে চট্টগ্রামের রাউজান উপজেলার বাগোয়ান এলাকায় মো. সাজ্জাদ হোসেন নামের এক যুবক নিহত হয়েছেন। আগামী সপ্তাহ থেকে চট্টগ্রামে ষষ্ঠ বিপিএল আসরের খেলা শুরু হবে।...

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে মাইক্রোবাস উল্টে খাদে, নিহত ৪

অনলাইন ডেস্ক: নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে একটি মাইক্রোবাস উল্টে খাদে পড়ে চারজন নিহত হয়েছেন। রোববার (২০ জানুয়ারি) ভোরে বস্তল এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। সোনারগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোর্শেদ আলম জানান, ঘন কুয়াশার কারণে নারায়ণগঞ্জের ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে একটি মাইক্রোবাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উল্টে খাদে পড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলে চারজনের মৃত্যু হয়। নিহতদের মধ্যে তিনজনের পরিচয় জানা গেছে। এরা হলেন- সদর পৌরসভার বাঘানগর এলাকার মোমেল, ব্রাম্মনদী ইউনিয়নের মারওয়ারদী এলাকার শহিদুল্লাহ ও ড্রাইভারের রাজু। ওসি আরও জানান, নিহতদের স্বজনরা কোন কিছু না জানিয়েই তাদের লাশ নিয়ে গেছে।...

না:গঞ্জে সংরক্ষিত নারী এমপি প্রত্যাশী আলীয়া মফিজের মনোনয়নপত্র দাখিল

বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠাতা মহান ভাষা সৈনিক বীরমুক্তিযোদ্ধা মফিজুল ইসলামের সুযোগ্য কন্যা নারায়ণগঞ্জে সংরক্ষিত নারী আসনে এমপি হিসেবে দেখতে চায় এ আসনের সর্বস্তরের জনগণ। আওয়ামীলীগের একজন নির্লোভ,পরপোকারী ও নিবেদিত সৈনিকের কন্যা হওয়ায় সকলের কাছে গ্রহণযোগ্যতা অর্জণ করেছেন। শুক্রবার বিকেলে তিনি রাজধানীর ৩/এ ধানমন্ডিস্থ দলীয় কার্যালয়ে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের দপ্তর বিষয়ক সম্পাদক ড.আবদুস সোবহান গোলাপের নিকট ওই মনোনয়নপত্রটি দাখিল করেন। মনোনয়ন জমাদান শেষে আলীয়া মফিজ সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে বলেন,আমার প্রয়াত পিতা মফিজুল ইসলাম বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের জন্য নিজের জীবন-যৌবণ সব ত্যাগ করেছেন। তিনি কখনোই স্বার্থের চিন্তা করেননি। দলকে ভালবেসে তিনি সংসার,পরিবার,পরিজন থেকে কিছুটা দূরে ছিলেন। রাজনীতিতে তিনি অনেক দিয়েছেন কিছুই পাননি। তাই পথ ধরে আমরা এগিয়ে চলেছি। আমরাও চাই পিতার মতো করে রাজনীতির মাধ্যমে সাধারণ মানুষের সেবা করতে। জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের মহাসড়কে যোগ দিয়ে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়তে নারায়ণগঞ্জের আপামর জনসাধারণে সুখ-দুঃখের সাথী হয়ে কাজ করবো। সর্বক্ষেত্রে মফিজুল ইসলামের কণ্যা ছাড়াও ব্যাক্তিগত জীবনে আলীয়া মফিজ আলো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এম এফ এ (মাস্টার্স অব ফাইন আর্টস ) ডিগ্রী লাভ করেন। পরবর্তীতে তিনি চারুকলা ইনস্টিটিউট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ,৭১প্রজন্ম চারুকলা ইনস্টিটিউট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়,বাংলা স্কাপচার এসোসিয়েশনের চিত্রশিল্পী এবং বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালণ করছেন। এ ব্যাপারে নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের জনৈক শীর্ষ কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান,সত্যিকার অর্থেই মফিজুল ইসলামের কাছে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ঋৃনী। তিনি দলকে শুধু দিয়েই গেছেন বিনিময়ে কিছুই পাননি কিংবা নেননি। এখন দলের উচিত তার সন্তানদেরকে মূল্যায়ন করে মফিজুল ইসলামের সেই ঋৃন শোধ করা। কারণ,সেইদিন তাদের মতো নেতার আবির্ভাব না ঘটলে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ জন্মলাভ করতে পারতোনা। আর আওয়ামীলীগের জন্ম না হলে দেশরত শেখ হাসিনা দেশকে উন্নয়নের মহাসড়কে অবতীর্ণ করতে পারতেন না। বন্দর থানা আওয়ামীলীগের অপর এক কর্মকর্তা একই শর্তে জানান,দেশে আওয়ামী রাজনীতি প্রতিষ্ঠার জন্য মফিজুল ইসলামের অবদান অনেক। তাদের মতো নেতারাই বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়ন করতে শিখিয়ে গেছেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি ...

গৃহবধূকে গণধর্ষণের অভিযোগ নোয়াখালীতে গ্রেপ্তার ১

অনলাইন ডেস্ক: নোয়াখালী জেলার কবিরহাটে সিঁধ কেটে ঘরে ঢুকে এক গৃহবধূকে গণধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় শনিবার দুপুরে চারজনকে আসামি করে মামলা করেছেন ওই নির্যাতিত নারী। পুলিশ অভিযুক্তদের মধ্যে জাকির হোসেন (৪০) নামে একজনকে গ্রেপ্তার করেছে। তিনি উপজেলার নবগ্রামের এনামুল হকের ছেলে ও স্থানীয় জিয়া নগরের মুদি দোকানদার। কবিরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মির্জা মোহাম্মদ হাসান জানান, শনিবার দুপুর ১টার দিকে নবগ্রামের এক গৃহবধূ থানায় উপস্থিত হয়ে অভিযোগ করেন, তার স্বামীর অনুপস্থিতির সুযোগে স্থানীয় মুদি দোকানদার জাকির হোসেনসহ আরও তিনজন সিঁধ কেটে ঘরে প্রবেশ করে তাকে ধর্ষণ করেছেন। ওসি আরও জানান, ওই নারীর দায়ের করা মামলায় জাকিরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকি আসামিদের গ্রেপ্তার করতে অভিযান চলছে। ভুক্তভোগীকে চিকিৎসার জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ওসির তথ্য অনুযায়ী, নির্যাতিত গৃহবধূর স্বামী পেশায় রাজমিস্ত্রী। নির্বাচনের আগে এলাকায় মারামারির অভিযোগে করা মামলায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। বর্তমানে তিনি কারাগারে রয়েছেন।...

এক ঘরে দুই ব্যক্তির ঝুলন্ত লাশ খুলনায়

অনলাইন ডেস্ক: খুলনার সোনাডাঙ্গা বাস টার্মিনাল এলাকার একটি বাড়ি থেকে শুক্রবার রাতে দুই ব্যক্তির ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহত ব্যক্তিরা হলেন- ঝিনাইদহ জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার শামসুদ্দিনের ছেলে মো. আক্তার হোসেন (৪৫), খুলনা নগরীর হাসনাবাদ এলাকার হুমায়ূন কবীরের ছেলে মেহেদী হাসান (১৭)। খুলনা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার এস এম সাকিলুজ্জামান জানান, শ্রমিক মেসন আক্তার ও মেহেদি কারখানার পাশেই একটি বাড়িতে ভাড়া থাকতেন। রাত ১০টায় স্থানীয়রা ঘরের ভেতরে তাদের লাশ ঝুলতে দেখে পুলিশকে খবর দেয়। পরে পুলিশ ১১টার দিকে লাশ দুটি উদ্ধার করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়। হত্যার পর তাদের লাশ ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে পুলিশ। তবে কে বা কারা এবং কেন এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে তা নিশ্চিত হতে পারেনি জানিয়ে খুলনা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার বলেন, পুলিশ এ বিষয়ে তদন্ত শুরু করেছে। ...

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনায় ফিলিপিন্সের ব্যাংক কর্মকর্তার সাজা

অনলাইন ডেস্ক: বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনায় ফিলিপিন্সের রিজল কমার্সিয়াল Bank করপোরেশনের (আরসিবিসি) সাবেক কর্মকর্তা মায়া সান্তোস দেগিতোকে দোষী সাব্যস্ত করে সাজার রায় দিয়েছে দেশটির একটি আদালত। এর মাধ্যমে তিন বছর আগে বিশ্বকে কাঁপিয়ে দেওয়া ওই সাইবার চুরির ঘটনায় এই প্রথম কাউকে দোষী সাব্যস্ত করে রায় দেওয়া হল। রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, ফিলিপিন্সের আঞ্চলিক আদালত বৃহস্পতিবার এই রায়ে মুদ্রাপাচারের আট দফা অভিযোগে দেগিতোকে দোষী সাব্যস্ত করে প্রতিটি ধারায় ৪ থেকে ৭ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে। সেই সঙ্গে ১০ কোটি ৯০ লাখ ডলার জরিমানা করা হয়েছে তাকে। ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের নিউইয়র্ক ফেডারেল রিজার্ভ থেকে হ্যাকিং করে ৮ কোটি ১০ লাখ ডলার ফিলিপাইনের মাকাতিতে জুপিটার স্ট্রিট শাখায় চলে যায়। তখন ওই শাখার ম্যানেজার ছিলেন মারিয়া দিগুইতো। জানা যায়, যেসব একাউন্টধারীর নামে অর্থ গিয়েছিল বলে অভিযোগ তার মধ্যে রয়েছেন মাইকেল ফ্রান্সিসকো ক্রুজ, জেসি ক্রিস্টোফার ল্যাগ্রোসাস, আলফ্রেড স্যান্তোস ভারগারা ও এনরিকো টিওডোরো ভাসকুয়েজ।...

দেশের অনুকূলে রাখার নির্দেশ ঋণচুক্তির শর্ত: অর্থমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক: অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তাফা কামাল অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) কর্মকর্তাদের বৈদেশিক ঋণচুক্তির শর্তসমূহ বাংলাদেশের অনুকূলে রাখার বিষয়টি নিশ্চিত করার নির্দেশ দিয়েছেন। বুধবার রাজধানীর শেরেবাংলানগর এনইসি সম্মেলনকক্ষে ইআরডির কর্মকর্তাদের সঙ্গে পরিচিতি সভায় তিনি বলেন, আপনাদের শক্ত অবস্থানে থেকে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ও বৈদেশিক ঋণ সংস্থার সঙ্গে নেগোসিয়েশন করতে হবে, যাতে বাংলাদেশের স্বার্থ সমুন্নত থাকে। ঋণচুক্তির শর্তসমূহ বাংলাদেশের অনুকূলে রাখতে হবে। সভায় ইআরডি সচিব মনোয়ার আহমেদ বিভাগের চলমান কার্যক্রমের বিষয়ে ব্রিফ করেন। অর্থমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ আজ পর্যন্ত বৈদেশিক ঋণের কিস্তি পরিশোধে এক ঘন্টার জন্যও বিলম্ব করেনি। বাংলাদেশের বৈদেশিক ঋণ-জিডিপির অনুপাত মাত্র ১৩ দশমিক ২ শতাংশ। যেখানে ঝুঁকিমুক্ত মাত্রা হলো ৪০ শতাংশ। তাই ইআরডিকে বৈশ্বিক পর্যায়ে বাংলাদেশের ঋণ সক্ষমতার বিষয়টি তুলে ধরতে হবে। ইআরডি কর্মকর্তাদের দেশের ঋণ সক্ষমতার অবস্থান ধরে রাখার আহবান জানিয়ে বলেন, আপনারা ঋণ সক্ষমতা ধরে রাখুন। তাহলে ভবিষ্যতে দেশের অবকাঠামো উন্নয়নের জন্য প্রয়োজনীয় বৈদেশিক অর্থায়ন সহজতর হবে। মুস্তাফা কামাল প্রকল্প বাছাইয়ের ক্ষেত্রে গ্রামীণ জীবনমান উন্নয়নের সাথে সংশ্লিষ্ট ছোট আকারের প্রকল্পে ঋণ সহায়তার প্রাধিকার প্রদানের নির্দেশনা দেন। একই সঙ্গে তিনি ইআরডির কার্যক্রম আরো গতিশীল করার প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেন।...

আগামী ২৭ জানুয়ারি থেকে ২৭ ফেব্রুয়ারি এক মাস কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখার নির্দেশ: শিক্ষামন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক: এসএসসি পরীক্ষা সামনে রেখে প্রশ্ন ফাঁস ঠেকাতে আগামী ২৭ জানুয়ারি থেকে ২৭ ফেব্রুয়ারি এক মাস কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দিপু মনি। আজ রোববার সচিবালয়ে আসন্ন এসএসসি ও সমমান পরীক্ষা বিষয়ে জাতীয় মনিটরিং ও আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত কমিটির সভা শেষে শিক্ষামন্ত্রী এ নির্দেশ দেন। শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘যারা প্রশ্ন ফাঁসের গুজব তৈরির চেষ্টা করে তারা নজরদারিতে আছে। এ ব্যাপারে বিটিআরসিকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেওয়া আছে। দিপু মনি বলেন, প্রশ্ন ফাঁস রোধে সিলগালা প্যাকেটের সঙ্গে এবার ফয়েল পেপার মোড়ানো থাকবে। পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট আগে শিক্ষার্থীকে হলে প্রবেশ করতে হবে। আগামী ২ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হচ্ছে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। প্রায় ২১ লাখ শিক্ষার্থী এই পরীক্ষায় অংশ নেবে।...

সরকার শিক্ষা প্রসারে বহুমুখী পদক্ষেপ নিয়েছে: মন্ত্রিপরিষদ সচিব

অনলাইন ডেস্ক: শিক্ষার প্রসারে সরকার বহুমুখী পদক্ষেপ নিয়েছে উল্লেখ করে মন্ত্রী পরিষদ সচিব মো. শফিউল আলম বলেছেন, মেধার সঠিক বিকাশ ঘটাতে গেলে অবকাঠামোগত ও পরিচ্ছন্ন শিক্ষার পরিবেশ দরকার। শহুরে সব সুযোগ-সুবিধা প্রত্যন্ত গ্রামেও একইভাবে বিদ্যমান করতে শিক্ষাব্যবস্থার উন্নয়নে কাজ করছে সরকার। সেই লক্ষ্যে প্রত্যন্ত অঞ্চলের স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসায় প্রয়োজনীয় অবকাঠামো তৈরি অব্যাহত রয়েছে। চার কোটি টাকা ব্যয়ে কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার রুমখাঁ পালং ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসার নতুন চারতলা ভবন ও পালং আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবনের ভিক্তিপ্রস্তর স্থাপনকালে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব মো. শফিউল আলম এসব কথা বলেছেন। শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর-কক্সবাজার জোনের অধীনে উন্নয়ন কাজ দুটি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। রোববার (২০ জানুয়ারি) দুপুরে এ ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর প্রধান কার্যালয়ের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী বুলবুল আক্তার, কক্সবাজার জোনের নির্বাহী প্রকৌশলী খন্দকার নাজমুল ইসলাম, সহকারী প্রকৌশলী মৃদুময় চাকমা, হলদিয়া পালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহ আলমসহ সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বশীল ও স্থানীয় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানস্থলে পৌঁছালে এডভোকেট দিপংকর বড়ুয়া পিন্টু মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. শফিউল আলমকে পুষ্পস্তবক দিয়ে স্বাগত জানান। আগামী অর্থবছরের শেষে এ উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ সমাপ্ত হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী খন্দকার নাজমুল ইসলাম।...

মিরাজের রাজশাহীর বড় সংগ্রহ দুই বিদেশির ব্যাটে

ক্রীড়া ডেস্ক: বিপিএলে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানসের বিপক্ষে প্রথম দেখাটা খুব একটা সুখকর ছিল না রাজশাহী কিংসের। মাত্র ১২৪ রানে ইনিংস গুটিয়ে নিয়ে পরে হেরেও ছিল পাঁচ উইকেটে। সেই দলটির বিপক্ষে দ্বিতীয় দেখায় টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ১৭৬ রানের বড় সংগ্রহ গড়ে মেহেদী হাসান মিরাজের দল। ইংলিশ ব্যাটসম্যান লরি ইভান্সের চমৎকার সেঞ্চুরির ওপর ভর করেই এই রান করে তারা। আজ সোমবার মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচে অবশ্য রাজশাহীর শুরুটা ছিল একেবারেই বাজে। দলীয় ২৮ রানে তিন নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যানের উইকেট হারিয়ে বসে তারা। এর পরই চতুর্থ উইকেট জুটিতে হাল ধরেন ইংলিশ ব্যাটসম্যান লরি ইভান্স ও নেদারল্যান্ডসের রায়ান টেস ডেসকাটে। দুজনে মিলে দলের সংগ্রহটাকে ভালো জায়গায় নিয়ে যান। যাতে ইভান্স চমৎকার হার-না-মানা একটি শতক করেন। তিনি ৬২ বলে ১০৪ রান করেন। এবারের আসরে এটি প্রথম শতক। তাঁকে দারুণ সাপোর্ট দিয়ে ডেসকাটে খেলেন ৫৯ রানের চমৎকার একটি ইনিংস। অবশ্য এবারের আসরে কুমিল্লা ভালোই খেলছে, এর আগে ছয় ম্যাচ খেলে চারটিতে জিতে ৮ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছে। আর সমান ম্যাচ খেলে রাজশাহী ৬ পয়েন্ট নিয়ে পঞ্চম স্থানে রয়েছে।...

দারুণ জয় পাহাড় টপকে মাশরাফির রংপুরের

ক্রীড়া ডেস্ক: জ্বলে উঠলেন সাব্বির রহমান। তাঁর অসাধারণ একটি ইনিংসের ওপর ভর করে সিলেট সিক্সার্স পাহাড়সম ১৯৪ রান গড়ে। কিন্তু এই বিশাল লক্ষ্য টপকে গেল মাশরাফি বিন মুর্তজার রংপুর রাইডার্স। বিপিএলের এই ম্যাচে তারা চার উইকেটের দারুণ জয় তুলে নিয়েছে। আজ শনিবার সিলেট আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে এই ম্যাচ জিতে তিন ম্যাচ পর জয়ে ফিরেছে রংপুর রাইডার্স। দলের ঝুলিতে কোনো রান যোগ না হওয়ার আগে ওপেনার ক্রিস গেইল সাজঘরে ফিরলেও এলেক্স হেলস (৩৩), রাইলি রুশো (৬১) ও এবি ডি ভিলিয়ার্সের (৩৪) মতো ব্যাটসম্যানদের দৃঢ়তায় গতবারের চ্যাম্পিয়নরা দারুণ জয় তুলে নিয়েছে। ফর্মের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রেখে পেসার তাসকিন আহমেদ চার ওভার বল করে ৪২ রান দিয়ে চার উইকেট তুলে নিয়েও পারেননি দলের হার এড়াতে। এর আগে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে সিলেটেরও শুরুটা ভালো হয়নি। দলীয় ১৩ রানের মাথায় সাজঘরে ফেরেন ওপেনার লিটন দাস। এর পরই ব্যাট হাতে রুখে দাঁড়ান তরুণ এই হার্ডহিটার ব্যাটসম্যান। নিকোলাস পুরানকে সঙ্গে নিয়ে শুধু দলের ঝুলিটাকেই সমৃদ্ধ করেননি, অনেকদিন পর খেললেন দরুণ একটি ইনিংস। শফিউল ইসলামের শিকার হয়ে সাজঘরে ফেরার আগে সাব্বির খেলেন ৮৫ রানের চমৎকার একটি ইনিংস। ৫১ বল খরচায় পাঁচটি চার ও ছয়টি ছক্কায় ইনিংসটি সাজিয়েছেন তিনি। আর ২৭ বলে ৪৭ রান করে শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থাকেন। রংপুর অধিনায়ক মাশরাফি চার ওভার বল করে ৩১ রান দিয়ে দুই উইকেট নিয়েও পারেননি প্রতিপক্ষের বড় সংগ্রহের পথে বাধা হতে। এই জয়ে সাত ম্যাচে ছয় পয়েন্ট নিয়ে রংপুর তৃতীয় স্থানে উঠে গেছে। আর সিলেট সমান ম্যাচ খেলে চার পয়েন্ট নিয়ে রয়েছে ষষ্ঠ স্থানে রয়েছে।...

ক্ষোভ শাকিবের

বিনোদন ডেস্ক: বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির বিভাজন নতুন কিছু নয়। দীর্ঘদিন ধরেই সমিতির গ্রুপিংয়ের কারণে চলচ্চিত্র ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে। সম্প্রতি বিষয়টি নিয়ে মুখ খুলেছেন নায়ক শাকিব খান। এই নায়ক ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আমাদের চলচ্চিত্রে এমন কিছু মানুষ রয়েছেন, ধীরে ধীরে তাদের মুখোশ খুলতে শুরু করেছে। তাদের অনেকের মুখোশ খুলে গেছে। ওইসব ব্যক্তির কারণে অনেক শিল্পী বেকার হয়েছেন। সে খবর হয়তো তারা নিজেরাও রাখেন না। শাকিব আরও বলেন, নিজের স্বার্থের জন্য তারা চলচ্চিত্রের ক্ষতি ডেকে এনেছিলেন। এখন সময় পাল্টে যাচ্ছে। চলচ্চিত্রের মানুষদের অনেকেই বুঝতে পারছেন চলচ্চিত্রের উন্নতি কীভাবে হয়। সমাজে কিছু মানুষ চারপাশে জাল বিছিয়ে রাখেন- যাতে অন্যরা তাকে আশীর্বাদ বলে মনে করেন। আসলে তারা মুখোশ পড়ে থাকেন। যখন মুখোশ খুলে পড়ে ও চারপাশের মিথ্যাগুলো প্রকাশিত হয়ে যায়, তখন তার আসল রূপ বের হয়ে আসে। তখন তার পাশে কেউ থাকেন না। বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির দুইবারের সভাপতি শাকিব খান। গত নির্বাচনে অবশ্য তিনি অংশগ্রহণ করেননি। তবে আগামী নির্বাচনে শাকিব খান সভাপতি পদে নির্বাচন করবেন বলে জানা গেছে। চলতি বছরের মাঝামাঝি শিল্পী সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা।...

উরি : সাত দিনে ৭০ কোটি

বিনোদন ডেস্ক: বলিউড অভিনেতা ভিকি কুশল ও ইয়ামি গৌতম অভিনীত উরি : দ্য সার্জিক্যাল স্ট্রাইক ভারতের বক্স অফিসে শাসন জারি রেখেছে। এ কথা নির্দ্বিধায় বলা যায়, বক্স অফিসের দিকে তাকালেই হাসির ঝিলিক উঠছে উরির নির্মাতার মুখে। আদিত্য ধর পরিচালিত এই যুদ্ধছবিই ২০১৯ সালের প্রথম বলিউড হিট। মুক্তির প্রথম সপ্তাহে ৬০ কোটির বেশি আয় করল ছবিটি। গেল বুধবার ভারতের বক্স অফিসে উরি সংগ্রহ করে সাত কোটি ৭৩ লাখ রুপি। মোট সংগ্রহ দাঁড়ায় ৬৩ কোটি ৫৪ লাখ রুপি। সপ্তম দিনে এই ছবির প্রত্যাশিত সংগ্রহ ৬ কোটি রুপি। এক সপ্তাহে বক্স অফিসে এ ছবির মোট সংগ্রহ দাঁড়াল প্রায় ৭০ কোটি রুপি। উরি : দ্য সার্জিক্যাল স্ট্রাইক-এর প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন ভিকি কুশল, ইয়ামি গৌতম, মোহিত রায়না ও পরেশ রাওয়াল। ২০১৬ সালে ভারতের জম্মু ও কাশ্মীরে উরি বেস ক্যাম্পে হামলা চালানোর পর পাকিস্তানে সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের ওপর ভিত্তি করে নির্মিত হয়েছে এই ছবি। ২০১৬ সালে সন্ত্রাসবাদীরা উরিতে বিমানবাহিনীর ঘাঁটিতে আক্রমণ করে। ঘুমন্ত অবস্থায় ১৯ জন সেনার মৃত্যু হয়। ভারত সরকার স্থির করে, পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীরের ভেতরে গিয়ে সার্জিক্যাল স্ট্রাইক চালাবে। হামলার মাসখানেক পর এই সার্জিক্যাল স্ট্রাইক সংঘটিত হয়েছিল ২৯ সেপ্টেম্বর। ১১ জানুয়ারি পর্দায় ওঠে উরি। মুক্তির দিন ভারতের বক্স অফিসে আয় করে আট কোটি ২০ লাখ রুপি। চিত্রসমালোচকদের প্রশংসায় ভাসছেন ৩০ বছরের ভিকি কুশল। গেল বছর এই অভিনেতার বেশ কয়েকটি সিনেমা ব্যাপক প্রশংসিত হয়। তার মধ্যে মেঘনা গুলজার পরিচালিত রাজি, রাজকুমার হিরানি পরিচালিত সঞ্জু ও অনুরাগ কাশ্যপ পরিচালিত মনমর্জিয়া অন্যতম। এই ছবিগুলো দক্ষ অভিনেতা হিসেবে ভিকির স্বাক্ষর। উরি সিনেমায় ভিকি কুশল সেনা কর্মকর্তার ভূমিকায় অভিনয় করেছেন, যিনি গোপন এই সামরিক অভিযানের নেতৃত্ব দেন। আর ইয়ামি গৌতম গোয়েন্দা কর্মকর্তার ভূমিকায় অভিনয় করেছেন। মোহিত রায়না এই সিনেমা দিয়ে বলিউডে পা রেখেছেন। সূত্র : ইন্ডিয়া টুডে...

শত বছরের পুরোনো দুর্গাবাড়ী

বাঙালি হিন্দু সমাজের প্রধান ধর্মীয় উৎসব শারদীয়া দুর্গোৎসব। আর এই পুজোয় আপনিও ঘুরে আসতে পারেন সিলেটের শত বছরের পুরোনো দুর্গাবাড়ী থেকে। আর খরচের কথা ভাবছেন, মাত্র ৮০০ টাকা।শোনা যায় কলকাতার পাথরঘাটা নামক স্থানের এক সম্ভ্রান্ত জমিদার এই দুর্গাবাড়ী প্রতিষ্ঠান করেন। এই ব্যাপারে ব্রজেন্দ্র নারায়ণ চৌধুরী সম্পাদিত স্মৃতি প্রতিতি নামক বই এ উল্লেখ আছে। ব্রজেন্দ্র নারায়ণ চৌধুরী ছিলেন সিলেট সরকারি মহিলা কলেজের প্রতিষ্ঠাতা। স্বদেশি আন্দোলনে অনেক বীর এখানে এসে মায়ের পায়ে নিজের রক্ত দিয়ে প্রতিজ্ঞা করতেন নিজের আদর্শ থেকে এক চুলও বিচ্যুত হবেন না। স্বদেশকে পরাধীনতা থেকে মুক্ত করেই তবে ঘরে ফিরবেন।টিলার ওপর মূল মন্দির অবস্থিত। অর্ধশত সিঁড়ি ডিঙিয়ে আপনাকে পৌঁছাতে হবে মূল মন্দিরে। মূল মন্দিরে স্থাপিত দুর্গা প্রতিমা শত বছর ধরে পুজিত হয়ে আসছেন। পাশেই আছে আপনার বসার জন্য জায়গা। এর সাথেই আছে শিব মন্দির। টিলার থেকে দূরের দৃশ্য আপনাকে অভিভূত করবে। পূজার সময় ধূপ-ধূনার মোহনীয় গন্ধ আপনাকে নিয়ে যাবে এক অন্য জগতে।কীভাবে যাবেন,দুর্গাবাড়ী মন্দির যেতে হলে আপনাকে বাস/টেনে করে আসতে হবে সিলেট শহরে। প্রতিদিন ঢাকা থেকে সিলেটের উদ্দেশে বাস/ট্রেন ছাড়ে, ভাড়া পড়বে ৩২০ টাকা থেকে এক হাজার ২০০ টাকা। সিলেট শহরের যেকোনো প্রান্ত থেকে দুর্গাবাড়ী যাব বললেই আপনাকে নিয়ে যাবে শত বছরের পুরোনো দুর্গাবাড়িতে। রিকশা/সিএনজি ভাড়া নেবে ৮০ থেকে ১৫০ টাকা।...

ঈদের ছুটিতে পর্যটন নগরী কক্সবাজারে

বর্ষা মৌসুম তারপরও ঈদের ছুটিতে পর্যটন নগরী কক্সবাজারে ছুটে আসছেন পর্যটকরা। তাদের স্বাগত জানাতে প্রস্তুত কক্সবাজার। সৈকত শহরের ৪ শতাধিক হোটেল-মোটেল-গেষ্টহাউজ ও কটেজ কর্তৃপক্ষের প্রস্তুতিও শেষ। আর পর্যটকদের নিরাপত্তায় বিশেষ ব্যবস্থা নিয়েছে ট্যুরিস্ট পুলিশও। রমজানে বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজার পর্যটক শূন্য থাকলেও ঈদের ছুটিতে ভ্রমণ পিপাসুদের ঢল নামে এই সৈকতে। বর্ষা মৌসুম হওয়ায় প্রথমে পর্যটকের সংকটের আশঙ্কা দেখা দিয়েছিল কক্সবাজারে। তবে সব আশঙ্কাকে উড়িয়ে দিয়ে এরই মধ্যে হোটেল-মোটেল-গেস্ট হাউস ও কটেজের প্রায় ৮০ শতাংশ কক্ষ বুকড হয়ে গেছে। আর ব্যবসায়ীরাও নতুন সাজে সাজিয়েছেন তাদের প্রতিষ্ঠান। হোটেল কর্তৃপক্ষও পর্যটকদের নানান সুযোগ-সুবিধা দেয়াসহ শেষ করছে যাবতীয় প্রস্তুতি। তারা আশা , প্রতি বছরেই মতো এবারও ঈদের ছুটিতে ভালো ব্যবসা হবে। বর্ষা মৌসুম তাই সাগর উত্তাল থাকবে। এক্ষেত্রে অনাকাঙ্কিত দুর্ঘটনা এড়াতে পর্যটকদের সমুদ্রে স্নান ও নিরাপত্তায় কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানালেন হোটেল ওনার্স এসোসিয়েশনের এ নেতা। কক্সবাজার হোটেল ওনার্স এসোসিয়েশনের মুখপাত্র মো. সাখাওয়াত হোসাইন জানান, 'সমুদ্র উত্তাল থাকবে। এখানে লাইফগার্ড ও পুলিশ ট্যুরিস্টদের তৎপরতাটা বৃদ্ধি করলে আমার মনে হয়, যারা কক্সবাজারে আসবেন তারা নিবিঘ্নে এখান থেকে ফিরতে পারবেন।' আর ট্যুরিস্ট পুলিশের এ কর্মকর্তা জানালেন, ঈদের ছুটিতে পর্যটকরা যাতে স্বাচ্ছন্দ্যে কক্সবাজার ভ্রমণ করতে পারে সেজন্য সব ধরণের পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।...

আমরাই আসছি, মানুষ আমাদের চাইছেন: একান্ত সাক্ষাৎকারে হাসিনা

নির্বাচন একেবারে দোড়গোড়ায়। হাতে রয়েছে মাত্র তিনটে দিন। ভোটের সেই উত্তেজনার মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেন বড় নিশ্চিন্ত! নির্বাচনের প্রাক্ মুহূর্তে আনন্দবাজার ডিজিটালকে আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে জানিয়ে দিলেন, তাঁর দল আওয়ামি লিগ ফের জিতছে।আগামী রবিবার বাংলাদেশে ১১তম সংসদ নির্বাচন। তার আগে বুধবার সন্ধ্যায় ঢাকার ধানমন্ডির সুধাসদনে হাসিনাকে অন্য মেজাজে পাওয়া গেল। সেই হাসিনার মুখে দেখা গেল তৃপ্তির হাসি। বড় নিশ্চিন্ত ভাবে বললেন, বাংলাদেশের জনগণের উপর আমার বিপুল আস্থা। মানুষ আমাদের সঙ্গে রয়েছে। জনগনের ভোটেই আমরা নির্বাচিত হব।;এতটা নিশ্চিত কী ভাবে হচ্ছেন? হাসিনার যুক্তি, ২০১৩-র নির্বাচনে প্রায় ছ শো স্কুল পোড়ানোর কথা বাংলাদেশের মানুষ ভুলে যায়নি। মুছে যায়নি প্রিসাইডিং অফিসার-সহ অজস্র নাগরিককে হত্যার স্মৃতি। রাস্তা কেটে মানুষের যাতায়াত বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। প্রধানমন্ত্রীর দাবি, সেই সময়ে জনগণই রুখে দাঁড়িয়েছিলেন। ভোটও দিয়েছিলেন তাঁরা। সেই জনগণ ফের তাঁকেই ভোট দেবেন বলে বিশ্বাস হাসিনার।একই সঙ্গে হাসিনা মনে করিয়ে দিলেন, নির্বাচনের পরে বাংলাদেশে একের পর এক সন্ত্রাসের ঘটনা ঘটানো হয়েছে। সাধারণ মানুষ সে সব ভোলেননি। আর ভোলেননি বলেই ওই সব ঘটনা যে রাজনৈতিক দল ঘটিয়েছিল, তারা জনসমর্থনহীন হয়ে পড়েছে। আর সেই জোরের জায়গা থেকেই ফের সরকার গঠনের ব্যাপারে আশাবাদী আওয়ামি লিগ।কিন্তু, নির্বাচনের আগে বিরোধীরা তো তাঁর দলের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ তুলছে। কথাটা বলতেই যেন একটু বিরক্ত হলেন প্রধানমন্ত্রী। বললেন, নালিশ করার পাশাপাশি বিভ্রান্তি ছড়াতে এবং মিথ্যা কথা বলতে ওরা ভীষণ পারদর্শী। হাসিনার পাল্টা দাবি, নির্বাচনে বিরোধীদের হয়ে যাঁরা প্রার্থী হতে চেয়েছেন, তাঁদেরই ওরা নমিনেশন দিয়েছে। কিন্তু, দলীয় প্রতীক পেয়েছেন এক জন। এর পর নিজেদের মধ্যেই সঙ্ঘাত শুরু হয়েছে বলে প্রধানমন্ত্রীর দাবি। তাঁর কথায়, দলের পুরনো বা জিতবেন এমন নেতাদের নমিনেশন দেয়নি ওরা। যে কারণে বঞ্চিতদের কাছে ওদের আক্রান্ত হতে হচ্ছে। কয়েক জন নেতা-কর্মীকে খুনের ঘটনা ঘটেছে সম্প্রতি। নির্বাচন সুষ্ঠু ভাবে শেষ হওয়ার পর সে বিষয়ে তদন্ত হবে বলেও জানালেন হাসিনা।বাংলাদেশের যুব সম্প্রদায় আওয়ামি লিগ সম্পর্কে খুবই উৎসাহী বলে মনে করেন হাসিনা। তাঁর মতে, বাংলাদেশে মানুষের মন থেকে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসটাই মুছে ফেলা হয়েছিল। এখনকার নতুন প্রজন্মের মধ্যে সত্যকে জানার একটা আগ্রহ রয়েছে। ইন্টারনেটে খুঁজলেই একাত্তরের অনেক তথ্য এখন জানা যায়। ফলে, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস জানার বিষয়টি এখন অনেক সহজ হয়ে গিয়েছে। হাসিনার কথায়, এর জেরে আওয়ামি লিগের প্রতি যুব সম্প্রদায়ের মতটাই পাল্টে গিয়েছে।নির্বাচন উপলক্ষে হাসিনা দেশের বিভিন্ন জায়গায় সফর করেছেন। সেই সফরে তিনি মানুষের কাছ থেকে ভালই সাড়া পেয়েছেন বলে এ দিন দাবি করেন হাসিনা। তাঁর কথায়, ;মানুষের মধ্যে সেই ভালবাসাটা দেখতে পেলাম জানেন! তাঁরা অন্তর থেকে চাইছেন, আওয়ামি লিগ আবার ক্ষমতায় আসুক। জনগণ এটা জানেন, আওয়ামি লিগের মাধ্যমেই তাঁদের ভাগ্য পরিবর্তিত হবে।মহিলাদের থেকে তো বটেই, আওয়ামি লিগ তরুণ সমাজের কাছ থেকেও অভূতপূর্ব সাড়া পাচ্ছে বলে এ দিন দাবি করেন হাসিনা। তিনি বলেন, এ বারের নির্বাচনটা আগের মতো অত চ্যালেঞ্জিং নয়। বৈরীতার পরিবেশও নেই। বরং আমাদের স্বপক্ষে একটা পরিবেশ তৈরি হয়েছে। এর আগের নির্বাচনগুলোয় একটা বিভেদ লক্ষ করতাম। এ বার কিন্তু একচেটিয়া ভাবে সকলের সমর্থনটা আমাদের সঙ্গে রয়েছে। সেটা টেরও পাচ্ছি।;পাকিস্তান প্রসঙ্গেও এ দিন মুখ খুলেছেন হাসিনা। তাঁর দাবি, বাংলাদেশে কিছু পাকিস্তানপ্রেমী মানুষ আছেন। যুদ্ধাপরাধীদের মন পড়ে আছে পাকিস্তানে,;এমন মন্তব্যও করলেন তিনি। পাশাপাশি জানিয়ে দিলেন, তাঁরা সতর্ক আছেন। কারও সঙ্গে বৈরীতা করতে না চাইলেও, দেশের অভ্যন্তরীন বিষয়ে কাউকে যে কোনও ভাবেই নাক গলাতে দেবে না বাংলাদেশ, সে কথাও এ দিন স্পষ্ট করে দিয়েছেন হাসিনা। বিভিন্ন মামলায় সাজাপ্রাপ্ত যে আসামিরা লন্ডনে বসে রয়েছে, তাদের সম্পর্কে আওয়ামি লিগের মনোভাব এ দিন স্পষ্ট হয়েছে হাসিনার কথায়। তাঁর মতে, ওই সব আসামিরা সব সময় বিদেশে বসে দেশের ভিতর একটা অশান্ত পরিবেশ তৈরি করতে চায়। অস্ত্র পাচার, চোরা কারবার এবং দুর্নীতির সঙ্গে যুক্ত ওই সব মানুষের অঢেল টাকা বলে হাসিনার অভিযোগ। তাঁর দাবি, বিএনপি ক্ষমতায় থাকাতে যারা সুযোগসুবিধা পেয়েছে, সেই সব ব্যবসায়ীরাও ওই দলকে টাকাপয়সা দেয়। তাঁর কথায়, ক্ষমতায় ছিল যখন, দেশের মানুষের কল্যাণে কাজ না করলেও নিজেদেও আখের ওরা গুছিয়ে নিয়েছে। ওই টাকা তো ওরা এখন ব্যয় করে দেশের ভেতরে অশান্ত পরিবেশ তৈরি করতে। পাশাপাশি তাঁর প্রতিশ্রুতি, ব্রিটেনের সঙ্গে কথা বলে ওই আসামীদের দেশে ফেরত এনে রায় কার্যকর করা হবে।এ বারের নির্বাচনে জামাতে ইসলাম কী ভাবে ধানের শীষ প্রতীক পেল তা নিয়েও এ দিন প্রশ্ন তুলেছেন হাসিনা। তাঁর প্রশ্ন, যাদের নির্বাচন কমিশন নিবন্ধন বাতিল করল, তাদের কী ভাবে নমিনেশন দেওয়া হয়? তিনি বলেন,জামাত তো গণহত্যার সঙ্গে জড়িত ছিল। বুদ্ধিজীবি হত্যার সঙ্গে জড়িত ছিল। মেয়েদেরকে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর হাতে তুলে দেওয়া থেকে ঘরবাড়ি দখল করেছিল। ওদের নমিনেশন দেওয়ায় স্বাভাবিক ভাবেই মানুষ শঙ্কিত!এ দিন কামাল হোসেনের রাজনৈতিক অবস্থান নিয়েও অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন হাসিনা। কামাল হোসেনকে দেশের সংবিধান রচয়িতা বলা হয়। তিনি আওয়ামি লিগ থেকে চলে গিয়ে নিজে দল করেন। ধানমন্ডি থেকে দাঁড়িয়েছিলেন এক বার। ওই নির্বাচনে তাঁর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছিল। হাসিনার কথায়, সেই তিনি কিনা গেলেন জামাত-বিএনপিকে সঙ্গে নিয়ে! এর পরেই একগাল হাসি-সহ তাঁর সংযোজন, আমি অবাক হইনি। কারণ কী জানেন? ওঁর শ্বশুরবাড়ি পাকিস্তানে। ছেলেদের একটু শ্বশুরবাড়ির টানটা বেশি থাকে।ঘণ্টাখানেক কথার পর সুধাসদনে তখন সন্ধ্যা বেশ গাঢ় হয়ে নেমে এসেছে। বিদায় পর্বে ফের জিজ্ঞেস করা গেল, ভোটের ফল কেমন হবে? হাসিনা জানালেন, ওই যে প্রথমেই বলেছিলাম, আমরাই আসছি। কারণ, মানুষ আমাদেরই চাইছেন। আনন্দবাজার পত্রিকাকে দেওয়া মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎকারটি পাঠকদের উদ্দেশ্যে প্রকাশ করা হল।...

দৈনিক ইত্তেফাক ও দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকার পরিবারকে জানাই শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন,ইত্তেফাক বস্তুনিষ

মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন চৌধুরী :গণমানুষের মুখপত্র দৈনিক ইত্তেফাক ৬৬ বছরে পা দিল আজ। ইত্তেফাক তার প্রতিষ্ঠাকাল থেকেই মানুষের অধিকার ও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার কথা বলে এসেছে। মহান মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার স্বপ্ন-লালিত যে বাংলাদেশ ইত্তেফাক সেই জাতি-রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার জন্য নিজেকে উত্সর্গ করেছিল। সেই পথ ছিল অত্যন্ত কঠিন। কিন্তু সত্ সাংবাদিকতা ছিল সেই কঠিন পথ পাড়ি দেওয়ার মন্ত্র। সত্ সাংবাদিকতার সেই মন্ত্র ইত্তেফাক আজও হূদয়ে ধারণ করে চলেছে। মূলত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, মানিক মিয়া ও ইত্তেফাক- এই ত্রয়ী এক হয়ে বাঙালির স্বাধিকার আন্দোলনের সর্বোচ্চ সীমা স্পর্শ করেছিল। তারই পথ ধরে মুক্তিযুদ্ধ এবং স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের অভ্যুদয় ঘটে। প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরে ইত্তেফাক বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশ করে চলেছে। দেশবাসীর অকুণ্ঠ সমর্থন, সীমাহীন ভালোবাসাই ছিল ইত্তেফাকের সুদীর্ঘ পথচলার একমাত্র শক্তি ও সাহস। আজকের শুভ মুহূর্তে বাংলাদেশের জনগণের প্রতি অশেষ কৃতজ্ঞতা, শুভেচ্ছা। মুক্তিযুদ্ধের পরে নতুন বাস্তবতায় দৈনিক ইত্তেফাক নতুন আঙ্গিকে প্রকাশিত হচ্ছে। কিন্তু সত্য, ন্যায়, গণতন্ত্র এবং বাংলাদেশের মানুষের অধিকারের প্রশ্নে ইত্তেফাকের অবস্থান কখনো বদলায়নি। প্রতিষ্ঠাকাল থেকে ইত্তেফাকের সেই পুরানো আদর্শই এখনও একমাত্র সম্পাদকীয় নীতি। আর তা হলো, নিরপেক্ষ ও নির্ভীক সাংবাদিকতার ধারা অনুসরণ এবং গণমানুষের মনে স্বাধীনতা সংগ্রামের মূল চেতনাকে বাঁচিয়ে রাখা, সাম্প্রদায়িকতা ও মৌলবাদের সঙ্গে আপস না করা এবং গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে অবিচল থাকা। মুক্তিযুদ্ধ দৈনিক ইত্তেফাকের নিরন্তর প্রেরণার উত্স। আজকের শুভক্ষণে তাই ইত্তেফাক গভীর শ্রদ্ধায় স্মরণ করছে বাঙালির স্বাধীকার আন্দোলনে নিহত শহীদদের। মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের। গণতন্ত্রের মানসপুত্র হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, মজলুম জননেতা মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও নির্ভীক সাংবাদিক তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়াকে। এঁদের সীমাহীন প্রেরণা, ভালোবাসা ও ত্যাগের বিনিময়ে ইত্তেফাক এই দীর্ঘ পথ পেরিয়ে আসার শক্তি পেয়েছে। ১৯৪৯ সালে পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগের মুখপত্ররূপে সাপ্তাহিক ইত্তেফাক পত্রিকা প্রকাশিত হয়। মজলুম জননেতা মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী ছিলেন পত্রিকার আনুষ্ঠানিক সম্পাদক। কলকাতা প্রত্যাগত তফাজ্জল হোসেন সাপ্তাহিক ইত্তেফাক পত্রিকার সাথে যুক্ত হন এবং ১৯৫১ সালের ১৪ আগস্ট থেকে এই পত্রিকার পূর্ণ দায়িত্ব গ্রহণ করেন। ১৯৫৩ সালের ২৪ ডিসেম্বর ইত্তেফাক দৈনিক পত্রিকা হিসেবে প্রকাশিত হয়। ১৯৫৪ সালের সাধারণ নির্বাচনে তত্কালীন ক্ষমতাসীন মুসলিম লীগ সরকারের যে ভরাডুবি হয়, এর পেছনে ছিল দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকার শক্তিশালী রিপোর্ট ও মানিক মিয়ার ক্ষুরধার লেখনি। ১৯৬৯ সালে তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া আকস্মিকভাবে ইন্তেকাল করেন। তাঁর মৃত্যুর পর ইত্তেফাক প্রকাশনা অব্যাহত থাকে এবং বাঙালির অধিকার আদায়ের সংগ্রামে ও স্বাধীনতা আন্দোলনে পত্রিকাটি সরাসরি সমর্থন দেয়। বিশেষ করে ১৯৭০ সালের নির্বাচন, আওয়ামী লীগের বিপুল বিজয়, ক্ষমতা হস্তান্তরে পাকিস্তানিদের অনীহা ও ষড়যন্ত্র এবং চূড়ান্ত পর্যায়ে ৭ মার্চ রেসকোর্স ময়দানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষণ ও সর্বাত্মক অসহযোগের আহ্বান থেকে ২৫শে মার্চ রাতে আক্রান্ত হবার পূর্বপর্যন্ত ইত্তেফাক গৌরবময় ভূমিকা পালন করে। বাংলাদেশের স্বাধিকার আন্দোলনে ইত্তেফাক অসামান্য ভূমিকা পালন করেছিল। সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে সোচ্চার থেকে আপসহীনভাবে সত্য প্রকাশ করে গেছে। একসময়ে তদানীন্তন পাকিস্তান সরকারের সামরিক শাসক ইত্তেফাকের প্রকাশনা বন্ধ করে দেয়। মহান মুক্তিযুদ্ধে ২৫ মার্চ রাতে ইত্তেফাক ভবন পুড়িয়ে দেওয়া হয়। কিন্তু মানুষের ভালোবাসায় বারবার প্রবল প্রতাপে ফিরে এসেছে ইত্তেফাক।অনলাইন দৈনিক www.newsekattor.com ও সাপ্তাহিক সংবাদের কাগজ পত্রিকার পক্ষ থেকে দৈনিক ইত্তেফাক ও দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকার পরিবারকে জানাই শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন চৌধুরী,সম্পাদক/প্রকাশক www.newsekattor.com ও সাপ্তাহিক সংবাদের কাগজ।...

৪ ফেব্রুয়ারি নাইকো মামলার পরবর্তী শুনানি

অনলাইন ডেস্ক: বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে নাইকো দুর্নীতি মামলার পরবর্তী শুনানি আগামী ৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত মুলতবি করা হয়েছে। আজ সোমবার দুপুর ১২টার দিকে পুরান ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডের পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগারে অবস্থিত ঢাকার ৯ নম্বর বিশেষ জজ শেখ হাফিজুর রহমানের আদালতে কারাবন্দি খালেদা জিয়া হাজির হন। তারপরই শুরু হয় মামলার কার্যক্রম। শুনানি চলে টানা দুপুর ২টা পর্যন্ত। এ সময় মামলার অন্য আসামিরাও আদালতে উপস্থিত রয়েছেন। আজকে মামলায় খালেদা জিয়ার পক্ষে শুনানি করেন আবদুর রেজাক খান, এ জে মোহাম্মদ আলী, ব্যারিস্টার আসাদুজ্জামান খান, মাসুদ আহমেদ তালুকদার। এ দিন এই মামলার আসামি সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদও শুনানিতে অংশ নেন। অপরদিকে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) পক্ষে শুনানিতে অংশ নেন মোশাররফ হোসেন কাজল। এর আগে গত ১৩ জানুয়ারি মামলার শুনানি হয়। সেদিন আদালত আসামিদের সময় দিয়ে আজকের জন্য শুনানির দিন রাখেন। ২০০৭ সালের ৯ ডিসেম্বর তেজগাঁও থানায় কানাডার কোম্পানি নাইকোর সঙ্গে অস্বচ্ছ চুক্তির মাধ্যমে রাষ্ট্রের বিপুল আর্থিক ক্ষতিসাধন ও দুর্নীতির অভিযোগ এনে খালেদা জিয়াসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে দুদকের সহকারী পরিচালক মুহাম্মদ মাহবুবুল আলম নাইকো মামলাটি করেন। পরে ২০০৮ সালের ৫ মে এ মামলায় খালেদা জিয়াসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম (সিএমএম) আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) সহকারী পরিচালক এস এম সাহেদুর রহমান। অভিযোগপত্রে প্রায় ১৩ হাজার ৭৭৭ কোটি টাকার রাষ্ট্রীয় ক্ষতির অভিযোগ আনা হয়। এ মামলার অন্য আসামিরা হলেন—সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, সাবেক জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী এ কে এম মোশাররফ হোসেন, সাবেক মুখ্য সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সচিব খন্দকার শহীদুল ইসলাম, সাবেক জ্যেষ্ঠ সহকারী সচিব সি এম ইউছুফ হোসাইন, বাপেক্সের সাবেক মহাব্যবস্থাপক মীর ময়নুল হক, সাবেক সচিব মো. শফিউর রহমান, ব্যবসায়ী গিয়াসউদ্দিন আল মামুন, ঢাকা ক্লাবের সাবেক সভাপতি সেলিম ভূঁইয়া ও নাইকোর দক্ষিণ এশিয়াবিষয়ক ভাইস প্রেসিডেন্ট কাশেম শরীফ।...

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আলীগের বিজয় সমাবেশ চলছে

অনলাইন ডেস্ক: একাদশ সংসদ নির্বাচনে অর্জিত বিশাল জয় উদযাপনে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে চলছে আওয়ামী লীগ আয়োজিত মহাসমাবেশ। আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত আছেন। শুক্রবার আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছিলেন, বিজয় সমাবেশে দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গুরুত্বপূর্ণ বার্তা দেবেন। তিনি সমাবেশে নেতাকর্মীদের ক্ষমতার অপব্যবহার না করতে সতর্ক করবেন। কাদের আরও জানিয়েছিলেন, শেখ হাসিনা দুর্নীতি, মাদক ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্সের বিষয়ে নেতা-কর্মীদের সতর্ক করবেন। বিশেষ করে মাদক নির্মূলে যে যুদ্ধ চলছে তাতে সবাইকে ঝাঁপিয়ে পড়ার নির্দেশনা আসবে সমাবেশ থেকে। এছাড়া, প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে উন্নয়ন পরিকল্পনা বিস্তারিতভাবে তুলে ধরবেন। এদিকে শনিবার সকালে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, নির্বাচনে হওয়া নৈতিক পরাজয় ঢাকার পাশাপাশি এ থেকে জনগণের সৃষ্টি অন্য দিকে সরিয়ে দিতে তারা (আওয়ামী লীগ) বিজয় উৎসব করছে। বিএনপি প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ৮৩তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে তার মাজারে পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে মির্জা ফখরুল আরও বলেন, আওয়ামী লীগ এমন এক বিজয় উদযাপন করছে যা তারা ভয়াবহ ভোট ডাকাতির মাধ্যমে পেয়েছে। ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হওয়া নির্বাচনে ২৫৭ আসন পেয়ে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট ২৯৯ আসনের মধ্যে জয়লাভ করে ২৮৮ আসনে। জোট সঙ্গী জাতীয় পার্টি পায় ২২টি আসন।...

নানা উপায়ে পছন্দের মেয়েটির মন জিততে পারেন !

অনলাইন ডেস্ক :মনের মানুষটাকে কাছে পেতে কার না ভাল লাগে? কার না ইচ্ছা করে মন খুলে তার সঙ্গে ২টি কথা বলতে। কিন্তু নানা আশঙ্কায় পিছিয়ে আসেন অনেকেই। বিশেষ করে যে সমস্ত ছেলেদের দেখতে তেমন সুপুরুষ নয়, তারা অনেক সময়ই পছন্দের মেয়েটিকে খুলে বলতে পারেন না। কিন্তু জানেন কি? শুধু দেখতে সুন্দর হওয়াই মেয়েদের পছন্দের তালিকায় থাকার একমাত্র শর্ত নয়। অন্য নানা উপায়ে পছন্দের মেয়েটির মন জিততে পারেন আপনি। তাকে চিনুন রাতারাতি যেমন কারও ঘনিষ্ঠ হওয়া যায় না, তেমনই কথা শুরু না করলে কোনও দিনও তার মনের কথা জানতে পারবেন না আপনি। দূর থেকে দেখা মেয়েটির সঙ্গে সাধারণ কথাবার্তা শুরু করুন। তার ছোটবেলা, বেড়ে ওঠা ও পরিবারের সম্পর্কে জানতে চান। বিভিন্ন সামাজিক বিষয়ে মতবিনিময় করুন। তার মত জানতে চান। এভাবেই ক্রমশ তাকে জানতে শুরু করবেন আপনি। জানতে পারবেন তার পছন্দ-অপছন্দ। মিল খুঁজে বার করুন কথায় কথায় নিজেদের মধ্যে নানা মিল খুঁজে বের করুন। পছন্দের রং, পছন্দের লেখক, পছন্দের গান মিলে গেলে তাকে জানান। এভাবেই গড়ে ওঠে সম্পর্কের বুনন। বন্ধু হোন যে কোনও প্রণয়ের সম্পর্কের প্রথম ধাপ হল বন্ধুত্ব। ফলে বন্ধুত্বকে টপকে কারও মন জেতা সম্ভব নয়। বন্ধুত্বকে গাঢ় করতে একসঙ্গে সময় কাটান। রেস্তোরাঁয়, পার্কে বা কোনও কলাকেন্দ্রে। মানুষ হিসেবে আপনি যে তার কাছে কতটা আনন্দের, ভাললাগার সেটা তাকে বুঝতে দিন। চালাকি করার চেষ্টা করবেন না মেয়েরা ছেলেদের মতলব ছেলেদের থেকেও ভাল বোঝে। তাই চালাকি করার চেষ্টা করবেন না। তার দিকে বেশি তাকাবেন না। চোখে চোখ যাতে না পড়ে সে দিকে খেয়াল রাখবেন। আর যৌন প্রস্তাব তো একেবারেই নয়। এতে হিতে বিপরীত হতে পারে। তুলনা করবেন না নিজেকে কখনও কারও সঙ্গে তুলনা করবেন না। কোনও নায়ক বা জনপ্রিয় ব্যক্তিত্বের মতো করে নিজেকে তুলে ধরবেন না। নিজে যেমন তেমনই থাকুন। এ সব মেয়েরা খুব সহজেই ধরে ফেলে। পরিস্কার থাকুন পরিস্কার পরিচ্ছন্ন থাকুন। শরীর থেকে যেন দুর্গন্ধ না বের হয়। জামা কাপড় পরিষ্কার রাখুন।...

জেনে নিন, কীভাবে দুর্গন্ধ থেকে মুক্তি পাবেন

অনলাইন ডেস্ক : ব্রণের সমস্যা, গরমে ঘেমে নাজেহাল হওয়ার সমস্যা, মেকআপ গলে যাওয়ার সমস্যা আরও অনেক সমস্যা এসে হাজির হয়। তবে গরমে যে সমস্যা সবথেকে বেশি সমস্যা দেয়, তা বোধহয় ঘামের দুর্গন্ধের সমস্যা। বহু মানুষের মধ্যে ঘামের দুর্গন্ধের সমস্যা দেখা দেয়। আর এর জন্য শুধু সেই ব্যক্তিই নন, আশেপাশের অনেকেই সমস্যায় পড়েন। রাস্তা-ঘাট, ট্রেন, বাস, বাড়িতেও ঘামের দুর্গন্ধে বিরক্ত হয়ে যান চেনা পরিচিত, অপরিচিত থেকে কাছের মানুষ প্রত্যেকে। জেনে নিন কীভাবে ঘামের দুর্গন্ধ থেকে মুক্তি পাবেন- ১। দিনের দু-বার ভালো ভাবে স্নান করলে ঘাম এবং ঘামের দুর্গন্ধ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। গরমকালে গিনে দুবার স্নান আপনার শরীরকে ঠাণ্ডাও রাখে আবার ঘামের দুর্গন্ধ থেকেও মুক্তি দেয়। ২। স্নান করে পোশাক পরার আগে শরীরটাকে ভালো করে হাওয়ায় শুকিয়ে নিন। ভেজা শরীরে কখনওই পোশাক পরবেন না। ভেজা শরীরে পোশাক পরলে, বেশি ঘাম হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। আরও পড়ুন নববর্ষ স্পেশাল রেসিপি: মিষ্টি দই ৩। আপনি স্লিভলেস পোশাক পরুন অথবা না পরুন, অবশ্যই শরীরের অবাঞ্ছিত রোমগুলি নির্মূল করুন। শরীরে অবাঞ্ছিত রোম ঘামের জন্ম দেয়, এবং তা থেকেই দুর্গন্ধের সৃষ্টি হয়। ৪। স্নানের সময়ে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল সাবান ব্যবহার করুন। অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল সাবান শরীর থেকে ব্যাকটেরিয়া দূর করে। যদি আপনার ত্বকে অ্যালার্জি কিংবা ইনফেকশনের ঝুঁকি থাকে, তাহলে সাবান পছন্দের সময়ে অবশ্যই চিকিত্সকের পরামর্শ নিন। ৫। শরীর থেকে ঘামের দুর্গন্ধ দূর করতে ল্যাভেন্ডার, পিপারমেন্ট, পাইন প্রভৃতির এসেন্সিয়াল ওয়েল ব্যবহার করুন। কিংবা একেবারে ঘরোয়া পদ্ধতিতে স্নানের জনে একটি পাতিলেবুর রস ব্যবহার করতে পারেন। ৬। অনেক সময়ে আমাদের খাদ্যাভাসের কারণেও ঘামের দুর্গন্ধ দেখা দিতে পারে। তেল-ভাজা-মশলা দেওয়া খাবার শরীরে ঘাম উত্পাদন করে। ঘামের হাত থেকে রক্ষা পেতে ৭। নাইলন কিংবা সিন্থেটিকের পোশাক একেবারেই পরবেন না। এতে ঘাম আটকে থাকে। সুতির হালকা পোশাক পরুন। সুতির পোশাক ঘাম টেনে নিয়ে শরীরকে শুকনো রাখে। জুতো পরার সময়েও সুতির মোজা পরুন। ৮। শুধু ডিওডোরেন্ট ব্যবহারেই ঘামের দুর্গন্ধ থেকে মুক্তি দেয় না। তার সঙ্গে অ্যান্টিপার্সপিরেন্ট ব্যবহার করুন।...

বাংলাদেশে জঙ্গি ঘাঁটি গড়তে দেব না: একান্ত সাক্ষাৎকারে হাসিনা

অনলাইন ডেস্ক :আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে জিতে ক্ষমতায় এলে লন্ডন থেকে খালেদা জিয়ার পুত্র তারেক রহমানকে ফিরিয়ে এনে বিচার করতে চান শেখ হাসিনা। ভোটের মুখে ভারতীয় সাংবাদিকদের দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে বুধবার এ কথা জানিয়েছেন তিনি। সেই সঙ্গে পাকিস্তানের নাম না-করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ভবিষ্যতেও বাংলাদেশের ভূখণ্ডকে ভারত-সহ কোনও প্রতিবেশী দেশের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসের ঘাঁটি করতে দেব না। আসন্ন ভোটে জয়ের প্রশ্নে আশাবাদী হয়েও সতর্ক থাকতে চাইছেন আওয়ামি লিগ নেত্রী। তাঁর কথায়, বিএনপি ও জামাতে ইসলামির জোট ভালই জানে, তারা নির্বাচনে জিততে পারবে না। সন্ত্রাস প্রশ্নে তাদের অতীত রেকর্ড খুব খারাপ। ভোট বানচালের চেষ্টা করতে পারে তারা। কিন্তু এ বার আমরা শুধু নই, দেশবাসীও সতর্ক।আলাপচারিতায় এ দিন বাংলাদেশের স্বাধীনতার লড়াই নিয়ে স্মৃতিতে ডুব দিয়েছেন হাসিনা। কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গাঁধীকে। একই সঙ্গে সাম্প্রতিক অতীত অর্থাৎ ২০১৩-১৪ সালের বাংলাদেশ পরিস্থিতি নিয়েও সরব হয়েছেন তিনি। তাঁর কথায়, মনে করে দেখুন ২০১৩ সালেরডিসেম্বরে বিএনপি-জামাত কী ভাবে স্কুলে, বাসে, অটোয়, স্টিমারে আগুন দিয়েছিল। বাবার সামনে শিশুর গায়ে আগুন ধরায়। বাস থেকে নামিয়ে ড্রাইভারের গায়ে পেট্রোল ঢালে। এটা কোন ধরনের আন্দোলন? কী অর্জন হয় এ থেকে? মানুষের সমর্থন পাচ্ছে না, তাই এ বারেও গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া নস্যাৎ করতে চাইছে তারা।চলতি ভোট প্রস্তুতিতে একটি চিত্র খুবই স্পষ্ট। বাংলাদেশের রাস্তাঘাটে আওয়ামি লিগের প্রতীক নৌকার অজস্র পোস্টার ব্যানার চোখে পড়লেও বিএনপির ধানের শিস কার্যত অনুপস্থিত। বিএনপি নেতাদের অভিযোগ, বিভিন্ন কেন্দ্রে ছিঁড়ে ফেলা হচ্ছে তাদের পোস্টার। প্রচারও করতে দিচ্ছে না আওয়ামি লিগ। অনেকে বলছেন, বিএনপি শিবির যেন ঝড়ের আগে থম মেরে রয়েছে। বিষয়টি জানতে চাওয়া হলে শেখ হাসিনার ব্যাখ্যা, আমরাও দেখছি। ওদের প্রার্থী রয়েছে কিন্তু পোস্টার নেই। অভ্যন্তরীণ লড়াইয়ের কারণে ওরা অনেক জায়গায় পোস্টার লাগাতে পারছে না, আর নালিশ করছে আমাদের নামে। আসলে ওরা প্রত্যেকটি আসন নিলামে চড়িয়েছিল। যে বেশি টাকা দিয়েছে তাকে টিকিট দিয়েছে। এক একটি আসনে একাধিক প্রার্থীকে মনোনয়ন দিয়েছে প্রথমে। পরে এক জনকে রেখে বাকিদের বাতিল করেছে। স্বাভাবিক ভাবেই ওদের যারা পুরনো লোক, তাঁরা ক্ষুব্ধ হয়েছেন। পুরো বিষয়টির কলকাঠি নাড়া হচ্ছে লন্ডন থেকে। লন্ডনে থাকা তারেককে ফিরিয়ে আনার প্রশ্নে হাসিনার বক্তব্য, তিনি গ্রেনেড হামলা-সহ বহু অপরাধে যুক্ত। তারেক বাংলাদেশের নাগরিক। তাই বিচারের জন্য ব্রিটিশ সরকারের সঙ্গে কথা বলে তাঁকে ফিরিয়ে আনা হবে।ভোটের আগে পাক দূতাবাসের মাধ্যমে আইএসআই তৎপরতা বাড়াচ্ছে বলে খবর প্রকাশিত হয়েছে। হাসিনার বক্তব্য, আমরাও জানি এই তৎপরতা চলছে। আসলে বিএনপির অনেক নেতার শরীরটা পড়ে থাকলেও আত্মা রয়েছে ওখানে। তবে এ জন্য আইএসআইকে দোষ দিই না। বিএনপি নেতাদেরই দিই। অস্ত্র চোরাকারবার আর হাওয়ালা থেকে করা অঢেল টাকায় লন্ডনে বসে তারা বাংলাদেশের গণতন্ত্রকে ধ্বংস করতে চাইছে।ভারতের সঙ্গে স্থলসীমান্ত চুক্তির বিষয়টি উল্লেখ করে হাসিনার বক্তব্য, গোটা বিশ্বের কাছে এটা একটা উদাহরণ। ছিটমহল বিনিময়ের মত বিষয় নিয়ে বহু দেশের মধ্যে যুদ্ধ বেধে যায়। কিন্তু আমরা কি সুন্দরভাবে করলাম! একটা বিষয় দেখেছি যে বাংলাদেশের কোনও বিষয় এলে ভারতের বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলি তাদের নিজেদের মধ্যে বিরোধিতা ভুলে যেন এক হয়ে যায়।ভারতের সঙ্গে স্থলসীমান্ত চুক্তির বিষয়টি উল্লেখ করে হাসিনা বলেন, গোটা বিশ্বের কাছে এটা একটা উদাহরণ। ছিটমহল বিনিময়ের মতো বিষয় নিয়ে বহু দেশের মধ্যে যুদ্ধ বেধে যায়। কিন্তু আমরা কী সুন্দর মিটমাট করলাম! একটা বিষয় দেখেছি, বাংলাদেশের কোনও বিষয় এলে ভারতের রাজনৈতিক দলগুলি বিরোধিতা ভুলে যেন এক হয়ে যায়! কিন্তু সব বিষয়ে এক হয় কি? এই মুহূর্তে কোনও বিতর্কিত মন্তব্য করতে নারাজ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী। এমনকি বাংলাদেশের ইলিশের ভারতে রফতানির বিষয়টিতেও বিশদে কিছু বলতে চাইলেন না। হাসিমুখে শুধু জানিয়েছেন, পানি পেলেই তিনি ইলিশ দিতে তৈরি! আনন্দবাজার পত্রিকাকে দেওয়া মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎকারটি পাঠকদের উদ্দেশ্যে প্রকাশ করা হল।...

তরুণ প্রজন্ম আওয়ামী লীগের জয়ে কতটা সমর্থন দেবে?

অনলাইন ডেস্ক :বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শুক্রবার সারা দেশ থেকে নির্বাচিত কিছু তরুণদের সঙ্গে বিশেষ এক আলোচনা অনুষ্ঠানে বসেছিলেন। বলা হচ্ছে, তাদের পরামর্শ ও পরিকল্পনার কথা শুনেছেন তিনি। বাংলাদেশে কাছাকাছি সময়ে বড় যে আন্দোলনগুলো হয়েছে সেগুলো প্রায় সবই তরুণদের আন্দোলন। সবচাইতে আলোচিত কোটা আন্দোলন বা নিরাপদ সড়ক আন্দোলন যেভাবে সামাল দেয়া হয়েছে তাতে আওয়ামী লীগের সাথে তরুণ প্রজন্মের দূরত্ব তৈরি হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। বাংলাদেশে এবারের নির্বাচনে প্রথমবার ভোটারের সংখ্যা প্রায় আড়াই কোটি। পাঁচই জানুয়ারি বিতর্কিত নির্বাচনের আগে ২০০৮ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ইশতেহারে যে পাঁচটি বিষয় সবচাইতে গুরুত্ব দেয়া হয়েছিলো তার অন্যতম হল যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের ইস্যু। ডিজিটাল বাংলাদেশ’ ইস্যুও তরুণদের আকর্ষণ করতে প্রচারণায় ব্যবহার করা হয়েছে। বলা হয় সেবার তরুণ প্রজন্ম আওয়ামী লীগের জয়ে ভূমিকা রেখেছিলো। আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরীকে জিজ্ঞেস করেছিলাম তারা তরুণদের এবার কিভাবে আকর্ষণ করার চেষ্টা করছেন? তিনি বলছেন, আমরাতো পৃথিবীটা তাদের হাতের মুঠোর ভেতরে এনে দিয়েছি, দিন বদলের সনদ ডিজিটাল বাংলাদেশের মধ্য দিয়ে। তারা পৃথিবীর যে প্রান্তে বিচরণ করতে চায় সেখানেই তারা যেতে পারে। এই যে সুবিধাগুলো তাদেরকে দিয়েছে বর্তমান সরকার। তথ্য প্রযুক্তিতে অভূতপূর্ব উন্নয়ন সাধন করেছি। এগুলো সবকিছু হচ্ছে তরুণদের জন্য। কিন্তু বাংলাদেশের তরুণ ভোটাররা বুঝতে শেখার পর গত দশ বছর আওয়ামী লীগ ছাড়া আর কোন দলকে ক্ষমতায় দেখেনি। অন্য কোন দলকে যাচাই করার কোন সুযোগ তারা পায়নি। কাছাকাছি সময়ে তাদের জন্য সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু ছিল কোটা সংস্কার ও সড়ক নিরাপত্তা আন্দোলন। এ দুটি আন্দোলনই একটি পর্যায়ে ক্ষমতাসীনদের জন্য বিব্রতকর হয়ে উঠেছিলো। দুটি আন্দোলনের ক্ষেত্রেই সরকারের ভূমিকা সেসময় প্রশ্নের মুখে পড়েছিলো। কোটা সংস্কারের আন্দোলনের ক্ষেত্রে সরকার প্রতিশ্রুতি দিয়েও তা রাখছে না বলে ক্ষোভ তৈরি হয়েছিলো। শেষমেশ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন হলেও অনেক নাটক ও বিলম্বের পর। এই আন্দোলন দুটি তারা সঠিকভাবে সামাল দেননি বলে মনে করেন নির্বাচন পর্যবেক্ষক সংস্থা ব্রতীর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শারমিন মুরশিদ। তিনি বলছেন এর প্রভাব ভোটে হয়ত পরতে পারে। তিনি বলছেন, দুটো আন্দোলনই নির্বাচনের খুব কাছাকাছি সময়ের মধ্যেই হয়েছে। আরও সেনসিটিভভাবে এটা সামাল দেয়া যেতো। তা করা হয়নি বা করতে পারেনি সরকার। তরুণদের কিছু ইনসেনসিটিভ কিছু ঘটনার অভিজ্ঞতা হয়েছে। সেটার কিছু প্রভাবতো পড়বে তবে তিনি মনে করছেন, বর্তমান সরকার একটা যায়গায় তরুণদের উপর অনেক নজর দিয়েছে। তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক যে উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তারা করার চেষ্টা করেছে সেখানে তরুণদের মাথায় রেখে অনেক কাজ হয়েছে। সেটিও নিশ্চয়ই কোন প্রভাব ফেলবে। তবে এই মুহূর্তে তরুণদের জন্য কোন ইস্যুটা সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ, তারা কি চায়, তাদের কোন বিষয়টি সবচাইতে দরকার, তাদের উদ্দেশ্য করে ইশতেহারে এমন কিছু থাকে না যা তাদের আকর্ষণ করতে পারে, বলছিলেন তিনি। তরুণরা আসলে কি চায়? সেটি বোঝার জন্য অনেকের সংগে কথা বলে মনে হল চাকরী বিষয়টা এই বেশিরভাগের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। কথা হচ্ছিলো নিশিতা মিতুর সাথে। তিনি এবছর ঢাকার একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাশ করে বের হয়েছেন। বাংলাদেশে এই বয়সী আরও অনেকের মতোই সরকারি চাকরির পরীক্ষা দিতে নিজেকে প্রস্তুত করছেন। তিনি বলছিলেন তার কাছে এখন সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল একটা ভালো চাকরি। তিনি বলছেন, কোটা আন্দোলন নিয়ে একটা সেইযে ঘোলাটে পরিবেশ, তার একটা স্বচ্ছ অবস্থান এটাই বোধহয় তরুণরা এখন সবচেয়ে বেশি ভাবছে।...

আমরাই আসছি, মানুষ আমাদের চাইছেন: একান্ত সাক্ষাৎকারে হাসিনা

নির্বাচন একেবারে দোড়গোড়ায়। হাতে রয়েছে মাত্র তিনটে দিন। ভোটের সেই উত্তেজনার মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেন বড় নিশ্চিন্ত! নির্বাচনের প্রাক্ মুহূর্তে আনন্দবাজার ডিজিটালকে আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে জানিয়ে দিলেন, তাঁর দল আওয়ামি লিগ ফের জিতছে।আগামী রবিবার বাংলাদেশে ১১তম সংসদ নির্বাচন। তার আগে বুধবার সন্ধ্যায় ঢাকার ধানমন্ডির সুধাসদনে হাসিনাকে অন্য মেজাজে পাওয়া গেল। সেই হাসিনার মুখে দেখা গেল তৃপ্তির হাসি। বড় নিশ্চিন্ত ভাবে বললেন, বাংলাদেশের জনগণের উপর আমার বিপুল আস্থা। মানুষ আমাদের সঙ্গে রয়েছে। জনগনের ভোটেই আমরা নির্বাচিত হব।;এতটা নিশ্চিত কী ভাবে হচ্ছেন? হাসিনার যুক্তি, ২০১৩-র নির্বাচনে প্রায় ছ শো স্কুল পোড়ানোর কথা বাংলাদেশের মানুষ ভুলে যায়নি। মুছে যায়নি প্রিসাইডিং অফিসার-সহ অজস্র নাগরিককে হত্যার স্মৃতি। রাস্তা কেটে মানুষের যাতায়াত বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। প্রধানমন্ত্রীর দাবি, সেই সময়ে জনগণই রুখে দাঁড়িয়েছিলেন। ভোটও দিয়েছিলেন তাঁরা। সেই জনগণ ফের তাঁকেই ভোট দেবেন বলে বিশ্বাস হাসিনার।একই সঙ্গে হাসিনা মনে করিয়ে দিলেন, নির্বাচনের পরে বাংলাদেশে একের পর এক সন্ত্রাসের ঘটনা ঘটানো হয়েছে। সাধারণ মানুষ সে সব ভোলেননি। আর ভোলেননি বলেই ওই সব ঘটনা যে রাজনৈতিক দল ঘটিয়েছিল, তারা জনসমর্থনহীন হয়ে পড়েছে। আর সেই জোরের জায়গা থেকেই ফের সরকার গঠনের ব্যাপারে আশাবাদী আওয়ামি লিগ।কিন্তু, নির্বাচনের আগে বিরোধীরা তো তাঁর দলের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ তুলছে। কথাটা বলতেই যেন একটু বিরক্ত হলেন প্রধানমন্ত্রী। বললেন, নালিশ করার পাশাপাশি বিভ্রান্তি ছড়াতে এবং মিথ্যা কথা বলতে ওরা ভীষণ পারদর্শী। হাসিনার পাল্টা দাবি, নির্বাচনে বিরোধীদের হয়ে যাঁরা প্রার্থী হতে চেয়েছেন, তাঁদেরই ওরা নমিনেশন দিয়েছে। কিন্তু, দলীয় প্রতীক পেয়েছেন এক জন। এর পর নিজেদের মধ্যেই সঙ্ঘাত শুরু হয়েছে বলে প্রধানমন্ত্রীর দাবি। তাঁর কথায়, দলের পুরনো বা জিতবেন এমন নেতাদের নমিনেশন দেয়নি ওরা। যে কারণে বঞ্চিতদের কাছে ওদের আক্রান্ত হতে হচ্ছে। কয়েক জন নেতা-কর্মীকে খুনের ঘটনা ঘটেছে সম্প্রতি। নির্বাচন সুষ্ঠু ভাবে শেষ হওয়ার পর সে বিষয়ে তদন্ত হবে বলেও জানালেন হাসিনা।বাংলাদেশের যুব সম্প্রদায় আওয়ামি লিগ সম্পর্কে খুবই উৎসাহী বলে মনে করেন হাসিনা। তাঁর মতে, বাংলাদেশে মানুষের মন থেকে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসটাই মুছে ফেলা হয়েছিল। এখনকার নতুন প্রজন্মের মধ্যে সত্যকে জানার একটা আগ্রহ রয়েছে। ইন্টারনেটে খুঁজলেই একাত্তরের অনেক তথ্য এখন জানা যায়। ফলে, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস জানার বিষয়টি এখন অনেক সহজ হয়ে গিয়েছে। হাসিনার কথায়, এর জেরে আওয়ামি লিগের প্রতি যুব সম্প্রদায়ের মতটাই পাল্টে গিয়েছে।নির্বাচন উপলক্ষে হাসিনা দেশের বিভিন্ন জায়গায় সফর করেছেন। সেই সফরে তিনি মানুষের কাছ থেকে ভালই সাড়া পেয়েছেন বলে এ দিন দাবি করেন হাসিনা। তাঁর কথায়, ;মানুষের মধ্যে সেই ভালবাসাটা দেখতে পেলাম জানেন! তাঁরা অন্তর থেকে চাইছেন, আওয়ামি লিগ আবার ক্ষমতায় আসুক। জনগণ এটা জানেন, আওয়ামি লিগের মাধ্যমেই তাঁদের ভাগ্য পরিবর্তিত হবে।মহিলাদের থেকে তো বটেই, আওয়ামি লিগ তরুণ সমাজের কাছ থেকেও অভূতপূর্ব সাড়া পাচ্ছে বলে এ দিন দাবি করেন হাসিনা। তিনি বলেন, এ বারের নির্বাচনটা আগের মতো অত চ্যালেঞ্জিং নয়। বৈরীতার পরিবেশও নেই। বরং আমাদের স্বপক্ষে একটা পরিবেশ তৈরি হয়েছে। এর আগের নির্বাচনগুলোয় একটা বিভেদ লক্ষ করতাম। এ বার কিন্তু একচেটিয়া ভাবে সকলের সমর্থনটা আমাদের সঙ্গে রয়েছে। সেটা টেরও পাচ্ছি।;পাকিস্তান প্রসঙ্গেও এ দিন মুখ খুলেছেন হাসিনা। তাঁর দাবি, বাংলাদেশে কিছু পাকিস্তানপ্রেমী মানুষ আছেন। যুদ্ধাপরাধীদের মন পড়ে আছে পাকিস্তানে,;এমন মন্তব্যও করলেন তিনি। পাশাপাশি জানিয়ে দিলেন, তাঁরা সতর্ক আছেন। কারও সঙ্গে বৈরীতা করতে না চাইলেও, দেশের অভ্যন্তরীন বিষয়ে কাউকে যে কোনও ভাবেই নাক গলাতে দেবে না বাংলাদেশ, সে কথাও এ দিন স্পষ্ট করে দিয়েছেন হাসিনা। বিভিন্ন মামলায় সাজাপ্রাপ্ত যে আসামিরা লন্ডনে বসে রয়েছে, তাদের সম্পর্কে আওয়ামি লিগের মনোভাব এ দিন স্পষ্ট হয়েছে হাসিনার কথায়। তাঁর মতে, ওই সব আসামিরা সব সময় বিদেশে বসে দেশের ভিতর একটা অশান্ত পরিবেশ তৈরি করতে চায়। অস্ত্র পাচার, চোরা কারবার এবং দুর্নীতির সঙ্গে যুক্ত ওই সব মানুষের অঢেল টাকা বলে হাসিনার অভিযোগ। তাঁর দাবি, বিএনপি ক্ষমতায় থাকাতে যারা সুযোগসুবিধা পেয়েছে, সেই সব ব্যবসায়ীরাও ওই দলকে টাকাপয়সা দেয়। তাঁর কথায়, ক্ষমতায় ছিল যখন, দেশের মানুষের কল্যাণে কাজ না করলেও নিজেদেও আখের ওরা গুছিয়ে নিয়েছে। ওই টাকা তো ওরা এখন ব্যয় করে দেশের ভেতরে অশান্ত পরিবেশ তৈরি করতে। পাশাপাশি তাঁর প্রতিশ্রুতি, ব্রিটেনের সঙ্গে কথা বলে ওই আসামীদের দেশে ফেরত এনে রায় কার্যকর করা হবে।এ বারের নির্বাচনে জামাতে ইসলাম কী ভাবে ধানের শীষ প্রতীক পেল তা নিয়েও এ দিন প্রশ্ন তুলেছেন হাসিনা। তাঁর প্রশ্ন, যাদের নির্বাচন কমিশন নিবন্ধন বাতিল করল, তাদের কী ভাবে নমিনেশন দেওয়া হয়? তিনি বলেন,জামাত তো গণহত্যার সঙ্গে জড়িত ছিল। বুদ্ধিজীবি হত্যার সঙ্গে জড়িত ছিল। মেয়েদেরকে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর হাতে তুলে দেওয়া থেকে ঘরবাড়ি দখল করেছিল। ওদের নমিনেশন দেওয়ায় স্বাভাবিক ভাবেই মানুষ শঙ্কিত!এ দিন কামাল হোসেনের রাজনৈতিক অবস্থান নিয়েও অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন হাসিনা। কামাল হোসেনকে দেশের সংবিধান রচয়িতা বলা হয়। তিনি আওয়ামি লিগ থেকে চলে গিয়ে নিজে দল করেন। ধানমন্ডি থেকে দাঁড়িয়েছিলেন এক বার। ওই নির্বাচনে তাঁর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছিল। হাসিনার কথায়, সেই তিনি কিনা গেলেন জামাত-বিএনপিকে সঙ্গে নিয়ে! এর পরেই একগাল হাসি-সহ তাঁর সংযোজন, আমি অবাক হইনি। কারণ কী জানেন? ওঁর শ্বশুরবাড়ি পাকিস্তানে। ছেলেদের একটু শ্বশুরবাড়ির টানটা বেশি থাকে।ঘণ্টাখানেক কথার পর সুধাসদনে তখন সন্ধ্যা বেশ গাঢ় হয়ে নেমে এসেছে। বিদায় পর্বে ফের জিজ্ঞেস করা গেল, ভোটের ফল কেমন হবে? হাসিনা জানালেন, ওই যে প্রথমেই বলেছিলাম, আমরাই আসছি। কারণ, মানুষ আমাদেরই চাইছেন। আনন্দবাজার পত্রিকাকে দেওয়া মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎকারটি পাঠকদের উদ্দেশ্যে প্রকাশ করা হল।


বাংলাদেশে জঙ্গি ঘাঁটি গড়তে দেব না: একান্ত সাক্ষাৎকারে হাসিনা

অনলাইন ডেস্ক :আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে জিতে ক্ষমতায় এলে লন্ডন থেকে খালেদা জিয়ার পুত্র তারেক রহমানকে ফিরিয়ে এনে বিচার করতে চান শেখ হাসিনা। ভোটের মুখে ভারতীয় সাংবাদিকদের দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে বুধবার এ কথা জানিয়েছেন তিনি। সেই সঙ্গে পাকিস্তানের নাম না-করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ভবিষ্যতেও বাংলাদেশের ভূখণ্ডকে ভারত-সহ কোনও প্রতিবেশী দেশের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসের ঘাঁটি করতে দেব না। আসন্ন ভোটে জয়ের প্রশ্নে আশাবাদী হয়েও সতর্ক থাকতে চাইছেন আওয়ামি লিগ নেত্রী। তাঁর কথায়, বিএনপি ও জামাতে ইসলামির জোট ভালই জানে, তারা নির্বাচনে জিততে পারবে না। সন্ত্রাস প্রশ্নে তাদের অতীত রেকর্ড খুব খারাপ। ভোট বানচালের চেষ্টা করতে পারে তারা। কিন্তু এ বার আমরা শুধু নই, দেশবাসীও সতর্ক।আলাপচারিতায় এ দিন বাংলাদেশের স্বাধীনতার লড়াই নিয়ে স্মৃতিতে ডুব দিয়েছেন হাসিনা। কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গাঁধীকে। একই সঙ্গে সাম্প্রতিক অতীত অর্থাৎ ২০১৩-১৪ সালের বাংলাদেশ পরিস্থিতি নিয়েও সরব হয়েছেন তিনি। তাঁর কথায়, মনে করে দেখুন ২০১৩ সালেরডিসেম্বরে বিএনপি-জামাত কী ভাবে স্কুলে, বাসে, অটোয়, স্টিমারে আগুন দিয়েছিল। বাবার সামনে শিশুর গায়ে আগুন ধরায়। বাস থেকে নামিয়ে ড্রাইভারের গায়ে পেট্রোল ঢালে। এটা কোন ধরনের আন্দোলন? কী অর্জন হয় এ থেকে? মানুষের সমর্থন পাচ্ছে না, তাই এ বারেও গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া নস্যাৎ করতে চাইছে তারা।চলতি ভোট প্রস্তুতিতে একটি চিত্র খুবই স্পষ্ট। বাংলাদেশের রাস্তাঘাটে আওয়ামি লিগের প্রতীক নৌকার অজস্র পোস্টার ব্যানার চোখে পড়লেও বিএনপির ধানের শিস কার্যত অনুপস্থিত। বিএনপি নেতাদের অভিযোগ, বিভিন্ন কেন্দ্রে ছিঁড়ে ফেলা হচ্ছে তাদের পোস্টার। প্রচারও করতে দিচ্ছে না আওয়ামি লিগ। অনেকে বলছেন, বিএনপি শিবির যেন ঝড়ের আগে থম মেরে রয়েছে। বিষয়টি জানতে চাওয়া হলে শেখ হাসিনার ব্যাখ্যা, আমরাও দেখছি। ওদের প্রার্থী রয়েছে কিন্তু পোস্টার নেই। অভ্যন্তরীণ লড়াইয়ের কারণে ওরা অনেক জায়গায় পোস্টার লাগাতে পারছে না, আর নালিশ করছে আমাদের নামে। আসলে ওরা প্রত্যেকটি আসন নিলামে চড়িয়েছিল। যে বেশি টাকা দিয়েছে তাকে টিকিট দিয়েছে। এক একটি আসনে একাধিক প্রার্থীকে মনোনয়ন দিয়েছে প্রথমে। পরে এক জনকে রেখে বাকিদের বাতিল করেছে। স্বাভাবিক ভাবেই ওদের যারা পুরনো লোক, তাঁরা ক্ষুব্ধ হয়েছেন। পুরো বিষয়টির কলকাঠি নাড়া হচ্ছে লন্ডন থেকে। লন্ডনে থাকা তারেককে ফিরিয়ে আনার প্রশ্নে হাসিনার বক্তব্য, তিনি গ্রেনেড হামলা-সহ বহু অপরাধে যুক্ত। তারেক বাংলাদেশের নাগরিক। তাই বিচারের জন্য ব্রিটিশ সরকারের সঙ্গে কথা বলে তাঁকে ফিরিয়ে আনা হবে।ভোটের আগে পাক দূতাবাসের মাধ্যমে আইএসআই তৎপরতা বাড়াচ্ছে বলে খবর প্রকাশিত হয়েছে। হাসিনার বক্তব্য, আমরাও জানি এই তৎপরতা চলছে। আসলে বিএনপির অনেক নেতার শরীরটা পড়ে থাকলেও আত্মা রয়েছে ওখানে। তবে এ জন্য আইএসআইকে দোষ দিই না। বিএনপি নেতাদেরই দিই। অস্ত্র চোরাকারবার আর হাওয়ালা থেকে করা অঢেল টাকায় লন্ডনে বসে তারা বাংলাদেশের গণতন্ত্রকে ধ্বংস করতে চাইছে।ভারতের সঙ্গে স্থলসীমান্ত চুক্তির বিষয়টি উল্লেখ করে হাসিনার বক্তব্য, গোটা বিশ্বের কাছে এটা একটা উদাহরণ। ছিটমহল বিনিময়ের মত বিষয় নিয়ে বহু দেশের মধ্যে যুদ্ধ বেধে যায়। কিন্তু আমরা কি সুন্দরভাবে করলাম! একটা বিষয় দেখেছি যে বাংলাদেশের কোনও বিষয় এলে ভারতের বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলি তাদের নিজেদের মধ্যে বিরোধিতা ভুলে যেন এক হয়ে যায়।ভারতের সঙ্গে স্থলসীমান্ত চুক্তির বিষয়টি উল্লেখ করে হাসিনা বলেন, গোটা বিশ্বের কাছে এটা একটা উদাহরণ। ছিটমহল বিনিময়ের মতো বিষয় নিয়ে বহু দেশের মধ্যে যুদ্ধ বেধে যায়। কিন্তু আমরা কী সুন্দর মিটমাট করলাম! একটা বিষয় দেখেছি, বাংলাদেশের কোনও বিষয় এলে ভারতের রাজনৈতিক দলগুলি বিরোধিতা ভুলে যেন এক হয়ে যায়! কিন্তু সব বিষয়ে এক হয় কি? এই মুহূর্তে কোনও বিতর্কিত মন্তব্য করতে নারাজ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী। এমনকি বাংলাদেশের ইলিশের ভারতে রফতানির বিষয়টিতেও বিশদে কিছু বলতে চাইলেন না। হাসিমুখে শুধু জানিয়েছেন, পানি পেলেই তিনি ইলিশ দিতে তৈরি! আনন্দবাজার পত্রিকাকে দেওয়া মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎকারটি পাঠকদের উদ্দেশ্যে প্রকাশ করা হল।

শেখ হাসিনার মন্ত্রিসভাতে সবসময়ই একেকটি চমক থাকে

স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে প্রথম সরকার মাত্র সাড়ে তিনবছর দায়িত্বপালনের পর ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ট্র্যাজেডির মাধ্যমে তার অবসান ঘটে। তারপর ১৯৮২ সাল পযর্ন্ত ষড়যন্ত্রকারী, সামরিক এবং খুনিদের দ্বারা গঠিত কোনো সরকারই তাদের মেয়াদ পূণর্ করতে পারেনি। তারপর ১৯৮২ সাল থেকে ৯০ সালের শেষাবধি প্রায় ৯ বছরাধিক এরশাদের স্বৈরশাসন চলতে থাকে। ১৯৯১ সাল থেকে গণতান্ত্রিক ধারা সূচিত হলে বিএনপি ১৯৯১ থেকে ১৯৯৬ এবং ২০০১ থেকে ২০০৬ পযর্ন্ত পূণর্ দুই মেয়াদে সরকার পরিচালনা করেন। তবে ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রয়ারিতে বিএনপি এককভাবে একটি নিবার্চন করে সরকার গঠন করেছিল যার মেয়াদ ছিল মাত্র দুই সপ্তাহ।কিন্তু শেখ হাসিনার সরকার গঠনের বিষয়টি অতীতের সব রেকডের্ক ছাপিয়ে বাংলাদেশের ইতিহাসে নতুন রেকডর্ সৃষ্টি করেছেন। তিনি ১৯৮৬, ১৯৮৮, ১৯৯১ এবং ২০০১ সালের সংসদে বিরোধী দলীয় নেত্রী হয়েও যেমন রেকডর্ সৃষ্টি করেছেন, ঠিক তেমনি ১৯৯৬ থেকে ২০০১ পযর্ন্ত প্রথম মেয়াদে, ২০০৯ থেকে ২০১৪ পযর্ন্ত দ্বিতীয় মেয়াদে এবং ২০১৪ থেকে ২০১৯ সাল পযর্ন্ত তৃতীয় মেয়াদে এবং ২০১৯ সাল থেকে পরবতীর্ পঁাচ বছরের জন্য টানা তৃতীয় মেয়াদে এবং মোট সবোর্চ্চ চারবার সরকার গঠন করে বাংলাদেশের ইতিহাসে নজিরবিহীন রেকডর্ সৃষ্টি করলেন শেখ হাসিনা। এবারে একাদশ জাতীয় সংসদ নিবার্চনে আওয়ামী লীগ এককভাবে ২৫৯টি আসনে জয়লাভ করে রেকডর্ করেছে। পূবের্ ৪৮ সদস্যের মন্ত্রিসভার ছিল। এবারে ৪৭ সদস্যের মন্ত্রিসভা গঠন করা হয়েছে। যেখানে তারুণ্যকে দেয়া হয়েছে অন্যরকম গুরুত্ব। কারণ নিবার্চনের মনোনয়নেও এবার তারুণ্যকে গুরুত্ব দেয়া হয়েছিল। মোট ৪৭ সদস্যের মন্ত্রিসভায় ২৪ পূণর্মন্ত্রী, ১৯ প্রতিমন্ত্রী এবং ৩ উপমন্ত্রী দিয়ে সাজানো হয়েছে যারা ৭ জানুয়ারি ২০১৯ তারিখে শপথ নিলেন। সেখানে অধিকতর যোগ্য ও আগামীর পরিকল্পনামাফিক উন্নয়নের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় উপযোগীদের নিয়ে মন্ত্রিসভা গঠন করা হয়েছে মমের্ বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন।শেখ হাসিনার মন্ত্রিসভাতে সবসময়ই একেকটি চমক থাকে। এবারো তার ব্যতিক্রম হয়নি। কারণ প্রতিবার মন্ত্রিসভা গঠনের সময় এমন এমন বিষয় তিনি সামনে নিয়ে আসেন তা আগে কারো মাথাতেই কখনো আসেনি। কারণ, দেখা গেছে, ১৯৯৬ সালের অভিজ্ঞতার পর ২০০৯ সালের সরকারে সম্পূণর্ নতুন একঝঁাক মন্ত্রী নিয়ে সরকার গঠন করে শেষদিকে এসে জোটের শরিক এবং আগে বাদপড়া কিছু জ্যেষ্ঠ নেতাদের পুনরায় মন্ত্রিসভায় অন্তভুর্ক্ত করেন। ২০১৪ সালেও তাদের মন্ত্রিসভায় নিয়েই সরকার পরিচালনা করেন। মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন চৌধুরী,সম্পাদক-নিউজ একাত্তর ডট কম

আজকের মোট পাঠক

32917

নিউজ একাত্তর ডট কম

সম্পাদক : মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন চৌধুরী

নির্বাহী সম্পাদক : আহাম্মদ হোসেন ভুইয়া

একটি পপুলার মিডিয়া পাবলিকেশন এর প্রকাশনা | রেজি নং: চ-১২৪২৭/১৭

সম্পাদকীয় ও বানিজ্যিক কার্যালয় : ৪১৬/সি,খিলগাও ঢাকা ০২৪৩১৫০৪৮৮, ০১৮২৪২৪৫৫০৪, ০১৭৭৮৮৮৮৪৭২

চট্টগ্রাম কার্যালয় : ১৯/২০/২১ বি ৩য় তলা, হানিমুন টাওয়ার,পাহাড়তলী,চট্টগ্রাম।

ই-মেইল : newsekattor@gmail.com, editorekattor@gmail.com, কপিরাইট ©newsekattor.com কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত